সচিন তেন্ডুলকর আমাদের সবার কাছে রোল মডেল। সবাইকে তিনিই পথ দেখিয়েছেন। তবে রান তাড়া করার ক্ষেত্রে সচিনকে ছাপিয়ে গিয়েছে বিরাট কোহলি। আর বর্তমানে আধুনিক ক্রিকেটে বিরাট যদি রজার ফেডেরার হন তাহলে স্টিভ স্মিথ নাদাল। বক্তা অন্য কেউ নন প্রোটিয়া তারকা এবি ডিভিলিয়ার্স।  করোনা ভাইরাস মহামারীর জেরে বিশ্বের বেশিরভাগ দেশেই চলছে লকডাউন। ঘরবন্দি অবস্থাতেই জীবন কাটাচ্ছেন ক্রিকেটাররা। ব্যতিক্রম নন দক্ষিঁ আফ্রিকার প্রাক্তন তারকা ব্যাটসম্যান এবি ডিভিলিয়ার্স। লকডাউনের কারণে পরিবারের সঙ্গেই সময় কাটাচ্ছেন মিস্টার ৩৬০ ডিগ্রি। একইসঙ্গে লকডাউনের কারণে সোশ্যাল মিডিয়াতেও সক্রিয়তা বেড়েছে ক্রিকেটারদের। সম্প্রতি এমনই সোশ্যাল মিডিয়ায় জিম্বাবোয়ের প্রাক্তন ক্রিকেটার পমি বাঙ্গোয়ার সঙ্গে লাইভ চ্যাটের সময় সচিন, বিরাট, স্মিথ প্রসঙ্গে আলোচনায় বক্তব্যগুলি বলেন এবি ডিভিলিয়ার্স।

আরও পড়ুনঃভারতের মাটিতে আয়োজিত অনুর্ধ্ব ১৭ মহিলা বিশ্বকাপের নয়া সূচি ঘোষণা করল ফিফা

পমি বাঙ্গোয়ার সঙ্গে লাইভ চ্যাট চলাকালীন ডিভিলিয়ার্সকে তার অনুগামীরা জিজ্ঞাসা করেন, কোহালি ও স্মিথের মধ্যে কে সেরা। কঠিন প্রশ্নের সম্মুখীন হয়ে কিছুটা বিব্রত হন এবিডি। একটু ভাবনার প্রিয় বন্ধু বিরাটকে কিছুটা এগিয়ে রেখে ডিভিসিয়র্স জানান, ‘‘দু’ জনের মধ্যে তুলনা করা কঠিন। টেনিসের উদাহরণ টেনে বিষয়টা বলা যাক। বিরাট ফেডেরার। আর স্মিথ নাদাল। স্মিথ মানসিক দিক থেকে খুব কঠিন। ক্রিজের স্মিথের ব্যাটিং স্টান্স দেখে অনেকে অবাক হতেই পারেন। সচরাচর এ ভাবে ব্যাট করতে দেখা যায় না কাউকে। কিন্তু নতুন নতুন সব রেকর্ড করতে দক্ষ। কিন্তু আমার পছন্দ বিরাট। বলমারার ক্ষেত্রে ওর সহজাত দক্ষতা রয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে বিরাট রান করেছে। কঠিন পরিস্থিতি থেকে ম্যাচ বের করেছে।’’ 

আরও পড়ুনঃক্রিকেটে অব্যাহত করোনার থাবা,স্থগিত মহিলা বিশ্বকাপ ও অনুর্ধ্ব ১৯ পুরুষ বিশ্বকাপের কোয়ালিফায়ার

আরও পড়ুনঃসব উৎকন্ঠার অবসান, সম্ভাব্য ১২ জুন থেকে শুরু হচ্ছে স্প্যানিশ লা লিগা

এরপর ডিভিলিয়ার্সের জন্য সব থেকে কঠিন ইয়র্কারটি করেন এবিডি ভক্তরা। সচিন ও কোহলির মধ্যে কে এগিয়ে জানতে চাওয়া হলে প্রোটিয়া তারকা জানান, ‘‘সচিন আমাদের সবার কাছে রোল মডেল। ও আমাদের পথ দেখিয়েছে। ওঁর সময়ে যেভাবে বোলারদের শাসন করেছে, তা দৃষ্টান্ত। কিন্তু ব্যক্তিগত ভাবে আমি কোহালির কথাই বলবো। বিরাটের মতো রান তাড়া করতে আমি কাউকে দেখিনি। রান তাড়া করার ক্ষেত্রে বিরাটের পাশে কেউ আসবে না। প্রতিপক্ষ যদি ৩৩০ রানও করে কোহালি সেই রানও তুলে দেবে।’’ ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা মজা করে বলেছেন, এই উত্তরটি দিতে নিজের কেরিয়ারের সমস্ত অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগাতে হয়েছে এবি ডিভিলিয়ার্সকে। কিন্তু পুরো সাক্ষাৎকারে এটুকু পরিষ্কার করে দিয়েছেন বিরাট কোহলি তার শুধু ভাল বন্ধু নয়, খুব ভাল বন্ধু।