টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ চলতি বছরে হচ্ছে না তা একপ্রকার নিশ্চিৎ। এশিয়া কাপ য়ে হচ্ছে না তা জানিয়ে দিয়েছেন খোদ বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। এই পরিস্থিতিতে আইপিএল করতে যে আর কোনও বাধা নেই তা একপ্রকার নিশ্চিৎ।  সেপ্টম্বরের শেষে খেরে নভেম্বর পর্যন্ত বিসিসিআইয়ের হাতে সময় রয়েছে আইপিএলের আয়োজন করার জন্য। কিন্তু এখন প্পশ্ন হচ্ছে কোথায় হবে আইপিএল। ভারতে যেভাবে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে তাতে দেশের মাটিতে আইপিএলের আয়োজন করা একেবারে সম্ভব নয়। আইপিএল হলে তা যে বিদেশের মাটিতে হবে তাও একপ্রকার নিশ্চিত।

আরও পড়ুনঃক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার ঘোষণায় আরও জোরদার হল আইপিএল হওয়ার সম্ভাবনা

আইপিএল আয়োদনের জন্য আগেই ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডকে প্রস্তাব দিয়েছিল শ্রীলঙ্কা ও সংযুক্ত আরব আমিরশাহি। সম্প্রতি এক বিসিসিআই কর্তা দাবি করেন নিউজিল্যান্ডও আইপিএল আয়োজনের প্রস্তাব দিয়েছে। ফলে তিনটি নাম নিয়েই বশ কয়েক দিন ধরে সংবাদ মাধ্যমে আলোচনা চলছিল। কিন্তু কিউই বোর্ডের তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হল, এই সংবাদ সম্পূর্ণ গুজব। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড এমন কোনও প্রস্তাব বিসিসিইকে দেয়নি। আর দেবেও না। কিউয়ি বোর্ডের তরফে রিচার্ড বুক বলেন, ‘এমন খবর সত্যি নয়, নিছক জল্পনা। আমরা আইপিএল আয়োজনের প্রস্তাব দিইনি এবং এমন কোনও পরিকল্পনাও নেই।’

আরও পড়ুনঃ২০২১ এ রাজ্যে বিজেপির মুখ কি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, ডোনার বক্তব্য উস্কে দিল সেই জল্পনা

আরও পড়ুনঃএশিয়া কাপ বাতিলের ঘোষণা,সম্মুখ সমরে সৌরভ গঙ্গোপাধ্য়ায় ও পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড

ফলে বিসিসিআইয়ের হাতে বর্তমানে বিকল্প রইল দুটি। একটি শ্রীলঙ্কা ও অপরটি সংযুক্ত আরব আমিরশাহি। তবে আইসিসির তরফ থেকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়ে কোনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত ধীরে চল নীতিই নিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। সরকারিবাবে বিশ্বকাপ বাতিলের পরই আইপিএলের ভ্যেনু নিয়ে বিচার করবে বিসিসিআই। তবে সব দিক বিচার করেই আইপিএল আয়োজন করতে চায় সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। স্বাস্থ্য নিয়ে কোনও রকম ঝুঁকি নিতে চাইছে না কেুই। ফলে আইপিএলের সম্ভাবনা উজ্জ্বল হলেও, বুঝে শুনেই পা বাড়াবে বিসিসিআই।