করোনা ভাইরাসের জেরে স্তব্ধ গোটা বিশ্ব। সংক্রমণ রুখতে গোটা বিশ্ব জুড়েই চলছে লকডাউন। বন্ধ সমস্ত স্পোর্টিং ইভেন্ট। ঘরবন্দি অবস্থায় সময় কাটাচ্ছেন সমস্ত প্লেয়াররা। এই পরিস্থিতিতে চেন্নাই সুপার কিংসের তরফে ইনস্টাগ্রামে লাইভ চ্যাট শোয়ের আয়োজন করা হয়েছিল। সেই খোলা মেলা আলোচনাতেই চেন্নাই সুপার কিংস দল, অধিনায়ক ধোনি ও কোচ স্টিফেন ফ্লেমিংয়ের মন খুলে প্রশংসা করলেন প্রাক্তন অসি তারকা শেন ওয়াটসন। 

আরও পড়ুনঃ২০১৯ বিশ্বকাপের পরই অবসর নেওয়া উচিত ছিল ধোনির, বিস্ফোরক মন্তব্য শোয়েব আখতারের

 সেই শোতেই ওয়াটসন বলেছেন, ‘‘দশটা ম্যাচে রান না পেলেও দলে সুযোগ পাওয়া যায় সিএসকে-তে। গত মরসুমে এমএস ধোনি এবং স্টিফেন ফ্লেমিং আমার উপরে ভরসা রেখেছিল। তার জন্য ওদের ধন্যবাদ জানাই।’’ অন্য কোনও ফ্র্যাঞ্চাইজির জার্সি পরে খেললে বার বার ব্যর্থ হয়েও দলে সুযোগ পেতেন না কোনও ক্রিকেটার। কিন্তু সিএসকে তো অন্য দলের থেকে সব অর্থেই আলাদা। সেই কারণেই ওয়াটসন বার বার ব্যর্থ হলেও তাঁর উপরে আস্থা দেখিয়েছেন ধোনি ও ফ্লেমিং। অজি তারকা বলেছেন, ‘‘অন্য ফ্র্যাঞ্চাইজি হলে দলে সুযোগই পেতাম না। সেই ফ্র্যাঞ্চাইজির তরফ থেকে হয়তো বলেই দেওয়া হত, খেলতে আসার জন্য ধন্যবাদ। এ বার তুমি বসে থাকো। জল নিয়ে যাও মাঠে।’’ কিন্তু ধোনি ও ফ্লেমিং তাঁকে নিয়মিত সুযোগ দিয়ে গিয়েছেন। সেই প্রসঙ্গে ওয়াটসন বলেছেন, ‘‘এক সময়ে মনে হয়েছিল, আর দু’ ম্যাচ পরেই হয়তো আমাকে বসিয়ে দেওয়া হবে। কিন্তু তা করা হয়নি।’’ তিনি বলেন, ‘‘এবং যখন পরিস্থিতি বদলালো, যেটা আমি জানতাম এক সময় হবে, আমি এমএস ধোনি এবং ফ্লেমিংকে ধন্যবাদ জানিয়েছিলেন তখন ওরা আমাকে বলেছিল ওদের আমাকে নিয়ে কোনও সংশয় ছিল না। এটা বিস্ময়ের ছিল। যেটার পর আমার নিজেকে ১০ ফিট লম্বা মনে হচ্ছিল।'' তিনি শেষ করেন, ‘‘এটাই অসাধারণ লিডারশিপের ক্ষমতা। এটা জানা কখন কার উপর ভরসা রাখতে হবে, কাকে ধরে রাখতে হবে এবং এটাই আমার জন্য অসাধারণ ছিল। আমি সারাজীবন ওদের কাছে কৃতজ্ঞ থাকব।''

আরও পড়ুনঃআইপিএলের ভবিষ্যৎ নিয়ে বড় ঘোষণা সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের, কী বললেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট

আরও পড়ুনঃসব জল্পনার অবসান,পরের মরসুমে লাল-হলুদ জার্সি পড়ছেন স্ট্রাইকার বলবন্ত সিং

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের পুরনো ক্রিকেটারদের মধ্যে একজন। ২০০৮-এ রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে প্রথম আইপিএল জিতেছিলেন তিনি।  এর পর চেন্নাই সুপার কিংসের হয়েও জেতেন। দু'বছর তিনি খেলেছিলেন রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের হয়েও। ২০১৬তে ফাইনালে পৌঁছনো দলের সদস্য ছিলেন তিনি। বর্তমানে সিএসকে দলের কোর মেম্বার হয়ে উঠেছেন  এই অজি তারকা।