২০০৫ সালে অভিষেকের পর ভারতীয় ক্রিকেট দলের হয়ে একাধিক ম্যাচ উইনিং ইনিংস খেলেছেন রায়না। তার ফর্ম ওঠা পড়া করলেও, ব্যাটিং , দূরন্ত ফিল্ডিং ও পার্ট টাইম বোলার হিসেবে রায়না একজন কমপ্লিট প্যাকেজ। এবিষয়ে সন্দেহ নেই কাররোরই। ২০১১ সালে ভারতের বিশ্বকাপ জয়ী দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন রায়না। তার দু’বছর পরে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জেতে ভারত। সেই দলের সদস্য ছিলেন তিনি। শেষ বার দেশের জার্সিতে রায়নাকে দেখা গিয়েছিল ২০১৮ সালে ভারতের ইংল্যান্ড সফরে। সেই  সফরে খুব একটা সুযোগ পাননি রায়না। তাপরর থেকে আর দলে সুযোগ দেওয়া হয়নি তাকে। লকডাউনে ভারতীয় দলের সহ অধিনায়ক রোহিত শর্মার সঙ্গে লাইভ চ্যাটে আড্ডায় বসেছিলেন সুরেশ রায়না। সেখানেই নিজের দল থেকে বাদ পড়া নিয়ে আলোচনা হয় দুই ক্রিকেটারের মধ্যে।

আরও পড়ুনঃকরোনার থাবা বাংলাদেশ ক্রিকেটে,আক্রান্ত ডেভলপমেন্ট কোচ

দিন কয়েক আগে সুরেশ রায়না প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচক এমএসকে প্রসাদকে বিঁধেছিলেন। জানিয়েছিলেন, দল থেকে ছেঁটে ফেলার পরেও প্রসাদ তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করেননি। কেন তাঁকে দলে নেওয়া হল না, সে বিষয়ে বিন্দুবিসর্গ জানাননি প্রসাদ। রায়নার সঙ্গে লাইভ চ্যাটে রোহিত শর্মা বলেছেন, ‘‘আমি জানি দীর্ঘ দিন ধরে খেলার পরে এ ভাবে দল থেকে বাদ পড়া মেনে নেওয়া কঠিন। আমরা তো আলোচনা করি, আমাদের দলে যে ভাবে হোক রায়নাকে দরকার। তোমার অভিজ্ঞতা রয়েছে। বোলিং ও ফিল্ডিং দুটোই ভাল করতে পারো। তোমাকে আমরাও জাতীয় দলের হয়ে খেলতে দেখেছি। যে ভাবেই হোক আমরা চাই তুমি দলে ফেরো। তবে এগুলো তো আমাদের হাতে নেই।’’

আরও পড়ুনঃফিফার ৫ পরিবর্তের নিয়মকে স্বাগত জানালেন বাইচুং ও বিজয়ন

আরও পড়ুনঃবকেয়া বেতন না পেলে ফেডারেশনে যাওয়ার হুমকি মোহনবাগান ফুটবলারদের

 রোহিত শর্মার বক্তব্যের পর সুরেশ রায় বলেন, ‘‘আমার চোট ছিল। অস্ত্রোপচার হয়েছিল। এ কারণেই হয়তো দল থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। আমার মধ্যে এখনও অনেক ক্রিকেট রয়েছে। দল নির্বাচন আমাদের কারওরই হাতে নেই। আমরা কেবল পারফরম্যান্সই করতে পারি। আমি নিজের খেলা উপভোগ করেছি। কেরিয়ারের গোড়ার দিকে তারকারা আমার পাশে দাঁড়িয়েছে।’’ জাতীয় দলে ফেরার জন্য আইপিএল টোয়েন্টি-টোয়েন্টিকে পাখির চোখ করেছিল রায়না। কিন্তু কোরনা ভাইরাসের কারণে বর্তমানে অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত হয়ে গিয়েছে আইপিএল। আদৌ টুর্নামেেন্ট হবে কিনা তা নিয়েও রয়েছে প্রশ্ন। ফলে জাতীয় দলের ফেরার যে আরও কঠিম হল সুরেশ রায়নার তা বুঝতে পারছেন স্বয়ং বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। অবশ্য রায়নার ভবিষ্যতের জন্য তাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রোহিত শর্মা।