সদ্য দলকে আইএসএল চ্যাম্পিয়ন করেছেন। একইসঙ্গে আইএসএলের প্রথম কোচ হিসেবে দুটি ট্রফি জয়ের নজিরও তার দখলে। তার কোচিংয়ের এটিকে তৃতীয়বার ভারত সেরা হয়েছে। সব থেকে বেশিবার ট্রফি জয়ের রেকর্ডও গড়ছে এটিকে। এবার করোনা ভাইরাস আতঙ্কের জেরে কোয়ারান্টাইনে গেলেন এটিকের কোচ অ্যান্টোনিও লোপেজ হাবাস। তবে ভয় পাবার কিছু নেই এটিকে ভক্ত ও কর্মকর্তাদের। করোনায় আক্রান্ত হননি হাসাব। মাদ্রিদ পৌছেই নিজের সুরক্ষার কথা ভেবে স্বেচ্ছায় কোয়ারেন্টাইনে গেছেন এটিকে কোচ।

আরও পড়ুনঃ 'মহারাজ'ও এবার ঘরবন্দি, করোনা আতঙ্কে দিলেন বিশেষ বার্তা

করোনায় আক্রান্ত বিশ্বের প্রায় ১৭০টিরও বেশি দেশ। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। ক্রীড়া ক্ষেত্রেও মারণ ভাইরাসের প্রকোপ মারাত্মক। করোনা ভাইরাসের হাত থেকে বাঁচতে স্বেচ্ছায় কোয়ারেন্টাইনের পথ বেছে নিয়েছেন অনেক প্লেয়ার ও দল। এবার সেই পথেই হাঁটলেন এটিকে কোচ হাবাস। কলকাতায় থাকাকালীন করোনা ভাইরাস আতঙ্ক গ্রাস করেছিল গোটা বিশ্বকে। দর্শকশূণ্য আসনেই ফাইনাল খেলেছিল হাবাসের দল। তাই চ্যাম্পিয়ন হলেও, উচ্ছাসে থেকে গিয়েছিল কিছুটা খামতি। যদিও আগেই হাবাস জানিয়েছিলেন মানুষের স্বাস্থ্যের বিষয়টি সবার আগে। এবার দেশে ফিরে নিজের স্বাস্থ্যের দিকেও একইভাবে সচেতনতার পরিচয় দিলেন এটিকে কোচ। মাদ্রিদ পৌঁছে তাড়াতাড়ি বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে চলে গেলেন আইএসএল জয়ী এটিকে কোচ। 

আরও পড়ুনঃকরোনা ভাইরাস রুখতে ভিডিও বার্তা সচিনের, কী বললেন মাস্টার ব্লাস্টার

আরও পড়ুনঃমহামারী করোনা, সচেতনতা বাড়াতে সেফ হ্যান্ডস চ্যালেঞ্জ গ্রহণ সচিন, সিন্ধু, হিমার

ইতিমধ্যেই স্পেনে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ৩০০ ছাড়িয়েছে। ফলে ১৫ দিনের জন্য দেশ জুড়ে কোয়ারান্টাইনে যাওয়ার জন্য সরকারি ঘোষণা করে দিয়েছেন স্পেনের প্রেসিডেন্ট পেড্রো স্যাঞ্চেজ। মাদ্রিদ পৌঁছে হাবাস বলেন, “মাদ্রিদ পুরোপুরি স্তব্ধ। সবাই নিজেদের ঘরেই আটকে রয়েছেন। মারাত্মক কিছু প্রয়োজনীয়তা ছাড়া মাদ্রিদে কেউই ঘর থেকে বের হচ্ছেন না।” এই মুহূর্তে মাদ্রিদে তাঁর ঘরেই রয়েছেন, জানালেন হাবাস। বলেন, “সরকার মনে করছে, ১৫ দিনের মধ্যেই সব কিছু স্বাভাবিক হয়ে যাবে।” তাহলে কি ঘর থেকেই একেবারেই বের হচ্ছেন না দু’বার আইএসএল জয়ী কোচ? হাবাস বললেন, “প্রয়োজনীয় কিছু কিনতে ঘরের বাইরে যেতেই হচ্ছে। বিশেষ করে ফার্মাসিতে যাওয়ার জন্য।”তবে তার যে শারীরিকভাব এখনও কোনও সমস্যা নেই তাও জানিয়েছেব হাবাস। কিন্তু পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত উদ্বেগে রয়েছেন এটিকে কোচ।