করোনা মোকাবিলায় রাজ্য সরকারের পাশে দাঁড়িয়েছে রাজ্যের দুই প্রধান ক্লাব মোহনবাগান ও ইষ্টবেঙ্গল। ২০  লক্ষ টাকা দিয়েছে তলতি মরসুমের আইলিগ জয়ী ক্লাব। আর ৩০ লক্ষ টাকা দেওয়ার ঘোষণা করেছে ইষ্টবেঙ্গল ক্লাব। ঘোষণার পর ক্লাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, শুধু ৩০ লক্ষ টাকাই নয়, প্রয়োজনে আরও বড় অর্থ দেওয়া হবে। আরও ১০ লক্ষ টাকা সংগ্রহ করেও দেওয়ার ঘোষণা করেছিলেন ইস্টবেঙ্গল কার্যনির্বাহী কমিটির অন্যতম সদস্য দেবব্রত সরকার। এছাড়াও ত্রাণ সামগ্রি বিলির কথাও বলে হয়ছিল লাল-হলুদের তরফে।

আরও পড়ুনঃটেনিস থেকে বিশ্রাম, করোনা যুদ্ধে দরীদ্রদের মুখে অন্ন তুলে দিচ্ছেন কেটি সোয়ান

কথা মতই কাজ ইষ্টবেঙ্গলের। করোনা মোকাবিলায় দেশ জুড়ে চলছে লকডাউন। জরুরি পরিষেবা ছাড়া বন্ধ সবকিছুই। কলকাতা ময়দানও শুনসান। এই সময় মহা সমস্যায় পড়েছেন ময়দানের মালিরা। বিভিন্ন ক্লাব তাঁবুতে তাদের বন্দি দশা চলছে। জুটছে না ঠিকমতো খাবারও। অধিকাংশ মালি বিভিন্ন রাজ্য থেকে পরিবার নিয়ে এসে দিনের পর দিন স্বল্প বেতনে ক্লাবগুলিকে সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছেন। অতি কষ্টে তাঁদের দিন গুজরান হয়। উপেক্ষিতই থাকতে হয় ক্লাব অন্তপ্রাণ এই মালিদের। এবার তাঁদের দিকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিল ইস্টবেঙ্গল। রবিবার জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ইস্টবেঙ্গলের কর্তা ও কর্মীরা ময়দানে ১৪টি ক্লাবের মালিদের হাতে তুলে দিলেন আগামী বেশ কয়েকদিনের খাবারের রসদ। এর মধ্যে রয়েছে এক বস্তা চাল, এক বস্তা ডাল, ১০ কেজি পিঁয়াজ, এক বস্তা আলু, ৩০টি ডিম, দু’লিটার সরষের তেল এবং যাবতীয় মশলার গুঁড়ো।

আরও পড়ুনঃকরোনার প্রকোপ ঠেকাতে হাত বাড়ালেন তারকারা, অর্থদান করলেন এবার বিরুষ্কা

আরও পড়ুনঃএ.এফ.সি-র করোনা সচেতনার প্রচারে ভাইচুং, সঙ্গে এশিয়ার তারকা ফুটবলাররা

এদিকে, ক্লাবের সদস্য-সমর্থকদের জন্য হেল্প লাইন চালু করেছে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব। কলকাতায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বিভিন্ন সমর্থকদের জন্য প্রয়োজন অনুসারে বাজার দোকান ওষুধ সহ বিভিন্ন প্রয়োজনীয় জিনিস সরবরাহের দায়িত্ব নিয়েছেন কর্তারা। কলকাতার বিভিন্ন অঞ্চল অনুসারে ইস্টবেঙ্গলের বিভিন্ন প্রতিনিধিরা ছড়িয়ে রয়েছেন। সাহায্যের আবেদন করার জন্য সেই প্রতিনিধিদের ফোন নম্বরের তালিকা সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে পোস্ট করা হয়েছে। সব মিলিয়ে করোনার বিপজ্জনক পরিস্থিতির মধ্যে মানবিকতার লাল-হলুদ মশাল জ্বালাল এই ক্লাব। এছাড়া আক্রান্তদের সাহায্যের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ৩০ লক্ষ টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে লাল-হলুদ কর্তৃপক্ষ। আগামী সপ্তাহে এই টাকা তুলে দেওয়া হবে।