লা-লিগায় লড়াই জমজমাট। রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনা সমান তালে দৌড়ে চলেছে। শনিবার আলভেজকে হারিয়ে বার্সেলোনার ওপর চাপ তৈরি করেছিল রিয়াল। লিগের শীর্ষ স্থান ধরে রাখতে রবিবার রাতের ম্যাচে জয় ছারা আর কোনও বিকল্প পথ খোলা ছিল না মেসিদের সামনে। তবে জয়টা সহজে আসবে এমনটা ভাবার জায়গা নেই। কারণ খেলা ছিল অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বিরুদ্ধে। সেটাও তাদের ঘরের মাঠে। নিজেদের রক্ষণ সামলে প্রতিপক্ষকে কী ভাবে নাজেহাল করতে হয় সেটা ভালই জানে সিমিওনের দল। খেলার শুরু থেকে সেটাই দেখা গিয়েছে। কোনও পক্ষণ গোলার দরজা খুলতে পারছিল না। ৮৬ মিনিটে মেসির একটা গোল বার্সেলোনাকে স্বস্তির তিন পয়েন্ট এনে দিল। কঠিন অ্যাওয়ে ম্যাচ থেকে জয় তুলে নিয়ে আবার লা-লিগার শীর্ষে পৌছে গেল কাতালান ক্লাব। 

 

 

আরও পড়ুন - জয় দিয়ে আইলিগ অভিযান শুরু করল চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই, প্রথম ম্যাচে জয় চার্চিলেরও

অ্যাটলেটিকোর বিরুদ্ধে মেসির গোল বার্সেলোনা সমর্থকদের স্বস্তি দিলেও, একটা প্রশ্ন থেকেই গেল কাতালান সমর্থদের মনে। কবে দলের দায়িত্বটা নিতে পারবেন গ্রিজম্যান। অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ থেকেই এই মরসুমের শুরুতে বার্সেলোনায় যোগ দিয়েছিলেন তিনি। তাই রবিবারের ম্যাচটা ছিল গ্রিজম্যানের কাছে একটা পরীক্ষা। নিজের প্রাক্তন ক্লাবের বিরুদ্ধে গ্রিজম্যানের একটা ভাল পারফরম্যান্স সব সমালোচনার জবাব দিতে পারত। কিন্তু আবারও ব্যর্থ ফরাসী স্ট্রাইকার। তাই গ্রিজম্যান নিয়ে ক্ষোভ ক্রমশ বেড়েই চলেছে কাতালান সমর্থদের মনে। কিছু তথ্যও উঠে আসছে ফুটবল পন্ডিতদের খাতায়। তথ্য বলছে গ্রিজম্যান বার্সেলোনায় যোগ দেওয়ার পর মেসিদের জয়ের হার কমেছে। ম্যাচ পিছু গোলের হার কমেছে। গ্রিজম্যানকে দলে নিতে গিয়ে নেইমারকে আর পিএসজি থেকে আনতে পারেনি বার্সোলোনা। এখন যেন সেটাই কাঁটা হয়ে বিঁধছে সবার মধ্যে। ক্লাব কতৃপক্ষ মুখে কিছু না বললেও তারাও যে খুশি নন সেটা পরিস্কার। এভাবে চলতে থাকলে আগামী উইন্ডোতে গ্রিজম্যানকে ছেড়েও দেওয়া হতে পারে। 

আরও পড়ুন - একই গ্রুপে ফ্রান্স-জার্মানি ও পর্তুগাল, জমে গেল ইউরো কাপের লড়াই

বার্সেলোনা এখন লিগের এক নম্বর স্থানে আছে। কিন্তু পয়েন্টের লিড নেই। ১৪ ম্যাচ খেলে তাদের পয়েন্ট ৩১। সম সংখ্যাক ম্যাচে একই জায়গায় দাঁড়িয়ে আছে রিয়াল মাদ্রিদও। শুধু গোল পার্থক্যে শীর্ষে আছে বার্সেলোনা। তবে সেই সংখ্যাটাও মাত্র এক গোলের। রিয়াল মাদ্রিদের গোল পার্থক্য যেখানে প্লাস ১৯ সেখানে বার্সেলোনা আছে প্লাস ২০তে। কতদিন এই জায়গা ধরে রাখা যাবে সেটা নিয়েই ভয় বার্সেলোনা সমর্থকদের মনে। তাই মেসি-সুয়ারেজের পাশাপাশি গ্রিজম্যানের কাছেও সেরাটা চাইছেন তারা। নাহলে শীর্ষস্থান ধরে রাখাটা খুব একটা সহজ হবে না। 

আরও পড়ুন - অনেক সহ্য করেছি আমরা, স্ত্রী অনুষ্কার পাশে দাঁড়িয়ে মন্তব্য বিরাট কোহলি