সব ঠিকঠাক থাকলে মঙ্গলবারই হয়তো নিশ্চিত হতে চলেছে ২০১৯-২০ মরসুমের আইলিগ ট্রফি ঢুকতে চলেছে গোষ্ঠ পাল সরণির তাঁবুতে। সোমবার প্রতিবেশি ক্লাব ইষ্টবেঙ্গলের রিয়াল কাশ্মীর বধের পর মোহনবাগানের পঞ্চমবার দেশের সেরা হওয়া এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। আইলিগ জেতার লড়াইয়ে সামান্যতম আশাটুকু জাগিয়ে রাখতে গেলে ইষ্টবেঙ্গলকে হারাতেই হতো তুষারি চিতাবাঘদের। কিন্তু ম্যাচের ইনজুরি টাইমে পেনাল্টি থেকে গোল করে রিয়াল কাশ্মীরের সব আশা শেষ করে দেন ভিক্টর পেরেজ। এই জয়ের ফলে একদিকে যেমন লিগ টেবিলের দুই নম্বরে উঠে এল মারিও রিভারর দল, অপরদিকে চিরপ্রতীদ্বন্দ্বী ক্লাবকে আইলিগ হাতের মুঠোর এনে দিল ইষ্টবেঙ্গল। আজ ঘরের মাঠে আইজলকে হারাতে পারলেই ৪ ম্যাচ বাকি থাকতেই ট্রফি ঘরে তুলবে মোহনবাগান। স্বভাবতই সবুজ-মেরুণ কর্মকর্তা, প্লেয়ার থেকে শুরু করে সমর্থক সকলের মধ্যেই এখন শুধু উৎসবের আবহ।

আরও পড়ুনঃআইপিএল নিয়ে বিশাল ঘোষণা সৌরভের, কী বললেন বিসিসিআই সভাপতি

পয়েন্টের বিচারে ৫ ম্যাচে আর ২ পয়েন্ট পেলেই ৩৮ পয়েন্টে পৌছে যাবে মোহনবাগান। একমাত্র মিনার্ভা যদি তাদের বাকি সব ম্যাচ জিততে পারে তাহলে ৩৮ পয়েন্টে পৌছতে পারবে পঞ্জাবের দলটি। কিন্তু সেক্ষেত্রেও গোল পার্থক্যের বিচারে চ্যাম্পিয়ন হবে মোহনবাগান। যদিও এইসব ভাবতে নারাজা বাগানের হেডস্যার কিভু ভিকুনা। ঘরের মাঠে আইজলের বিরুদ্ধে তার দল তিন পয়েন্টের জন্যই ঝাঁপাবে বলে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন বাগান কোচ। আইলিগে ১৩ ম্যাচ অপরাজিত থেকে নয়া নজিরও গড়েছে মোহনবাগান দল। বাগানের যে অশ্বমেধের ঘোড়া ছুটছে তাও বজায় রাখার বিষয়েও আত্মবিশ্বাসী কিভু। তাই ম্যাচের আগে প্র্যাকটিসে যথেষ্ট সিরিয়াস ছিলেন বাগান কোচ। আইলিগের প্রথম পর্বের সাক্ষাতে ড্র হয়েছিল বাগান বনাম আইজল ম্যাচ। তাই কল্যাণিতে নামার আগে কিভু ভিকুনা জানিয়েছেন, ' পুরো শক্তি নিয়েই মাঠে নামব আমরা। তিন পয়েন্টই আমাদের লক্ষ্য। কিন্তু মনে রাখতে হবে  আইজল যথেষ্ট শক্তিশালি দল। প্রচণ্ড দৌড়ায়। ওদের হারানো কঠিন। ১৪টি ম্যাচের মধ্যে ৭টি ড্র করেছে আইজল। যেগুলো হেরেছে তাও খুব লড়াই করে।' তবে আইজলের বিরুদ্ধে নামার আগে তার দল যে কোনও চাপে নেই তাও পরিষ্কার করেছেন কিভু।

আরও পড়ুনঃকরোনা আতঙ্ক এইবার থাবা বসালো আইপিএলে, রুদ্ধদ্বার ম্যাচ আয়োজনের কথা ভাবছে বিসিসিআই

আরও পড়ুনঃটোকিও অলিম্পিকের ছাড়পত্র পেল ৫ ভারতীয় বক্সার, শুভেচ্ছা কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রীর

তাই ঘরের মাঠে আইজল বধ ও ট্রফি নিশ্চিত করতে রক্ষণ সামলে আক্রমণেই যাওয়াই লক্ষ্য বাগান হেডস্যারের। আইজলের বিরুদ্ধে বাগান রক্ষণে ফ্রাঙ্ক মোরান্তের জায়গায় খেলতে পারেন ড্যানিয়েল সাইরাস। চোট সারিয়ে তিন ম্যাচ  পর মাঠে নামবেন ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগোর এই স্টপার। আক্রমণে ধার বাড়াতে বেইতিয়া ও বাবা দিওয়ারাদের সঙ্গে কোমরান তুর্সুনভকে খেলাতে পারেনি কিভু। ফলে ট্রফি জয় শুধু সময়ের অপক্ষা হলেও, ম্যাচ নিয়ে টু মাচ সিরিয়াস বাগান কোচ। অপরদিকে কল্যাণিতে আইজল বধ করেই বিজয় মিছিল করে ফেরার জন্য প্রস্তুত বাগান সমর্থকরা। একথায় গঙ্গাপারের ক্লাবে এখন শুধুই বসন্ত।