করোনা ভাইরাসের প্রকোপে বিধ্বস্ত ইউরোপের একাধিক দেশ। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। ইতালি,স্পেন, ফ্রান্স ব্রিটেনের মত সেই তালিকায় নাম ছিল জার্মানিরও। কোভিড ১৯-এর প্রভাবে এখনও পর্যন্ত সব দেশেই বন্ধ সমস্ত ধরনের খেলা। যার ফলে ব্যাপক আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে দেশগুলি। নিরাপত্তা ও সুরক্ষার দিক নিশ্চিত করে পুনরায় কীভাবে খেলা শুরু করা যায়,সেই পরিকল্পনাও শুরু করেছে দেশগুলি। ইতালি ও ইংল্যান্ডের পরিকস্পনা এগিয়েছে অনেক দূর। তবে সবাইকে পিছনে ফেলে সব ঠিক থাকলে ১৬ মে থেকে ফের শুরু হওয়ার কথা জার্মান বুন্দেশলিগা। কারণ করোনা আতঙ্ক কাটিয়ে ধীরে ধীরে ছন্দ ফিরছে জার্মানিতে। তার প্রধান কারণ, কড়া ভাবে লকডাউনের নিয়ম মেনে চলছেন সাধারণ মানুষ।

আরও পড়ুনঃলকডাউনে খান ডাল-ভাত-চোখা,মোবাইল সিনেমার মাধ্যমে বার্তা বাংলার ক্রিকেটারদের

শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে এক সপ্তাহ আগেই অনুশীলন শুরু করে দিয়েছিলেন জার্মানির বিভিন্ন ক্লাবের ফুটবলাররা। অনুশীলনের পাশাপাশি ফুটবলারদের স্বাস্থ্যপরীক্ষা জোরকদমে শুরু করে দিয়েছে ক্লাবগুলি। বুন্দাসলিগা কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুই অথবা পাঁচ দিন অন্তর স্বাস্থ্যপরীক্ষা করা হবে সব ক্লাবের ফুটবলার, সাপোর্ট স্টাফ ও ম্যাচ আয়োজনের সঙ্গে যাঁরা জড়িত রয়েছেন,তাঁদের সকলের। বাদ যাবেন না দেশের তারকা ফুটবলাররাও। ফলে করোনা পরীক্ষা করিয়েই মাঠে নামতে হচ্ছে মুলার, নয়ার, সুর্লেদের। এর আগে  ৯ মে থেকে শুরু করার কথা ছিল টুর্নামেন্ট। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্যই তা আরও এক সপ্তাহ পিছিয়ে দেওয়া হয়। 

আরও পড়ুনঃশুধু শীর্ষস্থান দখল নয়,ভারতের মাটিতে কোহলির দলকে হারানোই প্রধান লক্ষ্য অস্ট্রেলিয়ার

আরও পড়ুনঃঅধিনায়ক ও ব্যাটসম্যান হিসেবে স্মিথের থেকে এগিয়ে কোহলি,মন্তব্য প্রাক্তন অজি অধিনায়কের

বুন্দাসলিগা কর্তৃপক্ষের আগে থেকেই সুরক্ষার কথা ভেবে প্লেয়ারদের পরীক্ষা শুরু করে দিয়েছে ক্লাবগুলি। পরীক্ষার জন্য একাধিক ল্যাবরেটরির সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছে ক্লাবগুলো। কেউ কেউ স্বাস্থ্যপরীক্ষা করাচ্ছে ব্রেমেন ও গেসথাঠে। আবার কোনও ক্লাব বেছে নিয়েছে কোলনের ল্যাবরেটরি। ইতিমধ্যেই বৃহস্পতিবার পরীক্ষা হয়ে গিয়েছে  এফসি ফ্র্যাঙ্কফুর্ট, হেরথা বার্লিন ও বায়ার লেভারকুসেন প্লেয়ার ও সাপোর্টিং স্টাফদের। শুক্রবার পরীক্ষা হয়েছে  বায়ার্ন মিউনিখ, বরুসিয়া ডর্টমুন্ড, আরবি লাইপজ়িগের সদস্যদের। ফলে সব দিক খতিয়ে দেখে একশো শতাংশ নিশ্চিত হয়েই লিগ শুরু করতে চলেছে বুন্দাসলিগা কর্তৃপক্ষ।