বলিউডের ও হলিউডের দাপুটে অভিনেতা ইরফান খান। মুম্বাইয়ের কোকিলাবেন হাসপাতাল কর্তৃক জারি করা এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে যে, শেষের দিকে ইরফান খানের পেটের সমস্যা অত্যন্ত বৃ্দ্ধি পায়। এর আগে থেকেই কোলন সংক্রমণের সমস্যা নিয়ে লড়াই করে যাচ্ছিলেন। এর আগে ২০১৮ সালে, এটি প্রকাশিত হয়েছিল যে ইরফান খানের নিউরোইনডোক্রাইন টিউমার রয়েছে। নিউরোএন্ডোক্রাইন টিউমারের চিকিত্সার জন্য ইরফান খান লন্ডনে এক বছর ধরে চিকিত্সা করেছিলেন। একজন যোদ্ধার মত এই মারণ রোগের সঙ্গে মোকাবিলা করেছিলেন তিনি। বিখ্যাত অভিনেতা ইরফান খান এর হওয়া এই  নিউরোএন্ডোক্রাইন টিউমার বা ক্যানসার নেট আসলে কী,  এর কারণ, উপসর্গ জেনে নেওয়া যাক-

আরও পড়ুন- 'প্লাজমা থেরাপি'র আশায় জল ঢালল কেন্দ্র, রক্তরস অদল-বদলে রয়েছে 'প্রাণের ঝুঁকি'ও

নিউরেনডোক্রাইন টিউমার বা ক্যানসার নেট আসেল কী? 

নিউরোইনডোক্রাইন টিউমারগুলি এন্ডোক্রাইন গ্রন্থিতে প্রভাব ফেলে। এন্ডোক্রাইন গ্রন্থি দেহে হরমোন সংক্রমণ করে এবং স্নায়ুতন্ত্র এটি নিয়ন্ত্রণ করে। নিউরো এন্ডোক্রাইন টিউমারগুলি এমন একটি অবস্থা যখন স্নায়ুর মধ্যে হরমোনগুলি বের করে এই গ্রন্থিগুলির কোষগুলি অনিয়ন্ত্রিতভাবে বিকাশ করে। নিউরোএন্ডোক্রাইন টিউমার একটি বিরল ধরণের টিউমার যা শরীরের যে কোনও অংশে দেখা দিতে পারে। এই টিউমার বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ফুসফুস, অগ্ন্যাশয়, ক্ষুদ্রান্ত, অ্যাপেন্ডিক্স এবং মলদ্বারকে প্রভাবিত করে। 

আরও পড়ুন- করোনা ভাইরাস এবার হানা দিতে পারে চোখেও, সতর্ক থাকুন এখনই

নিউরোএন্ডোক্রাইন টিউমার বা ক্যানসার নেট এর লক্ষণ-

এই রোগের ফলে ঘাম ছাড়াই মুখ বা ঘাড়ের ফ্লাশিং (লালভাব, তাপ), ডায়রিয়া, শ্বাসকষ্ট, দ্রুত হার্টবিট, উচ্চ রক্তচাপ, অবসাদ, দুর্বলতা, পেটে ব্যথা, দ্রুত ওজন বৃদ্ধি, কাশি
পা এবং গোড়ালি ফোলা, ত্বকের ক্ষত, ত্বকের পাতলা প্যাচ, পাতলা ত্বক, উচ্চ রক্তে শর্করার মাত্রা, ঘন ঘন প্রস্রাব হওয়া, জল চেষ্টা বৃদ্ধি পাওয়া, অতিরিক্ত ক্ষুধা, নার্ভাসনেস, মাথা ঘোরা, কাঁপুনি ও অজ্ঞানতা, জ্বর এবং বমি বমিভাব দেখা দেয়। 



নিউরোএন্ডোক্রাইন টিউমারগুলির কারণ-

নিউরোএন্ডোক্রাইন টিউমার একটি বিরল রোগ। এর অর্থ হ'ল বাবা-মার মধ্যে কারও যদি নিউরোএন্ডোক্রাইন টিউমার থাকে তবে তাদের বাচ্চারা এটির বিকাশের ঝুঁকিতে থাকে।  দুর্বল প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন লোকদের নিউরোএন্ডোক্রাইন টিউমার হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।  নিউরোএন্ডোক্রাইন টিউমারগুলির কারণগুলির সাথে সূর্যের আলো জড়িত থাকতে পারে বলে বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা। যাদের বেশিরভাগ ক্ষেত্রের কাজ এবং রোদের মধ্য়ে কাজ করে তাঁদের আল্ট্রা ভায়োলেট রশ্মির কারণে এগুলি নিউরোএন্ডোক্রাইন টিউমারগুলির জন্য বেশি সংবেদনশীল।

নিউরোএন্ডোক্রাইন টিউমারের বা ক্যানসার নেট চিকিত্সা -

নিউউয়েনডোক্রাইন টিউমারকে কীভাবে চিকিত্সা করা হয় তা এখন প্রশ্ন উঠেছে। এটি সম্পূর্ণরূপে রোগীর অবস্থা এবং চিকিৎসকের চিকিৎসা পদ্ধতির উপর নির্ভর করে। তবে সাধারণ তথ্যের জন্য এই চিকিত্সায় সাধারণত যে চারটি পদ্ধতি ব্যবহৃত হয় সেগুলি হল-

সার্জারি-  প্রাথমিকভাবে এই টিউমার অপসারণের জন্য সার্জারি করার বিষয়েই সিদ্ধান্ত নেন চিকিৎসকরা।  অর্থাৎ নিউরোঅ্যান্ডোক্রাইন টিউমারকে দেহ থেকে অপসরণ করা।

মেডিকেল অনকোলজি -নিউরোইনডোক্রাইন টিউমার এবং চিকিত্সার লক্ষ্যগুলির উপর নির্ভর করে কেমোথেরাপি, হরমোন থেরাপি বা বিকল্প কোনও থেরাপি দিয়ে থাকেন চিকিৎসকরা। 

রেডিয়েশন থেরাপি- সাধারণত নিউরয়েডোক্রাইন টিউমারগুলি ছড়িয়ে পড়ে বা শরীরে এমন কোনও জায়গায় হয় যেখানে অস্ত্রোপচার করা বেশ কঠিন। তখন এই থেরাপি ব্যবহার করা হয়।

গ্যাস্ট্রোএন্টেরোলজি- জিআই ট্রেকের ক্ষেত্রে বাধা, ব্যথা বা শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যাগুলি দূর করার সময় গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিস্টগুলির প্রয়োজন হতে পারে।