বর্ষাকালে চুল পড়া বা ঝড়ে যাওয়ার মত বড় সমস্যায় পড়তে হয় প্রায় সকলকেই। বর্ষার সময় ছাড়াও চুলের যত্ন নিলে তবেই মিলবে ঘন কালো লম্বা চুল। তবে অনেকেই আছেন যারা শত চেষ্টা করেও চুল ঝড়ে পড়ার সমস্যা থেকে কিছুতেই মুক্তি পাচ্ছেন না। বিশেষজ্ঞদের মতে, চুলের স্বাস্থ্য কিছুটা নির্ভর করে হজমের সমস্যা, পরিপাক তন্ত্র ও সঠিক খাদ্যাভাসের উপর। তাই সব সময় ক্যামিক্যাল ব্যবহার করলেই যে চুল স্বাস্থ্যজ্জ্বল হবে তার কোনও মানে নেই। তবে জানলে অবাক হবেন আমাদের শরীরে কিছু এমন অংশ বা আকুপ্রেশার পয়েন্ট আছে যা চুলের বৃদ্ধি ও চুল মজবুত হতে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন- শরীর ফিট রাখার জন্য, কোন ওয়ার্কআউটের জন্য কতটা সময় দেওয়া প্রয়োজন জেনে নিন

আকুপ্রেসার লাতিন শব্দ ‘আকু’ অর্থাৎ সূচ ও ‘প্রেসার’অর্থাৎ চাপ থেকে এসেছে। আকুপাঙ্কচার বা আকুপ্রেশার এর হল মূলনীতিবিশিষ্ট একটি বিকল্প চিকিৎসাপদ্ধতি। এর মূল বিষয় হল প্রাণশক্তি যা দেহের মেরিডিয়ানে প্রবাহিত হয়। এই পদ্ধতিতে প্রাণশক্তি প্রবাহের বাধা দূর করতে আকুপাঙ্কচারের প্রভারে শরীরের উপযুক্ত স্থানগুলিতে চাপ প্রয়োগ করা। এই চাপ হাত, কনুই বা শরীরের নির্দিষ্ট কিছু অংশে হাত দিয়ে বা বিভিন্ন সরঞ্জামের মাধ্যমেও প্রয়োগ করা হতে পারে।

আরও পড়ুন- দৃষ্টি শক্তি ও চোখের স্বাস্থ্য উন্নত করতে অব্যর্থ দাওয়াই, যোগার টোটকাতেই রয়েছে সহজ সমাধান

কিছু গবেষণায় দেখা গেছে আকুপ্রেসার বমি, পিঠের ব্যথা, মাথাব্যথা, পেশীতে টান প্রভৃতি কমাতে সাহায্য করে। তবে এই গবেষণার নিরপেক্ষতা সুনিশ্চিত নয়। অন্যান্য বিকল্পের মত এর ‘‘প্লাসেবো ইফেক্ট’’ জনিত উপকার থাকতে পারে। আজ এমনই এক আকুপ্রেশার পয়েন্ট নিয়ে জানাবো যা চুল ঘন ও মোটা হতে সাহায্য করবে পাশাপাশি চুল উঠে টাক পড়ার হাত থেকেও রক্ষা করবে। দেখে নেওয়া যাক চুলের সমস্যার সমাধানের জন্য আকুপ্রেশার পয়েন্টগুলি।