কিডনি পাথরের সমস্যা বর্তমানে অতিপরিচিত একটি রোগ। মানবে দেহের সবচেয়ে পরিচিত একটি অঙ্গ এটি। কিডনি অচল হয়ে যাওয়া মানে অবধারিত মৃত্যু।  একটি ছোট পাথর উপসর্গ সৃষ্টি না করেও কিডনিতে হতে পাড়ে। যদি একটি পাথর ৫ মিলিমিটার থেকে বেশি হয় তবে এর ফলে ইউটেরাস এর বাধা হতে পারে যার ফলে নিম্ন পেট বা পেটে তীব্র ব্যথা হয়। আমাদের দেশে কিডনির সমস্যায় আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা খুব একটা কম নয়। ক্রমশ দিনে দিনে বেড়েই চলছে এর সংখ্যা। বর্তমানে কিডনি স্টোন বা বৃক্কে পাথর জমার সমস্যা এখন প্রায়ই শোনা যায়। কিডনি সমস্যাগুলির মধ্যে অন্যতম হল কিডনিতে স্টোন বা পাথর হওয়ার সমস্যা। 

আরও পড়ুন- আপনার পিঠেরও একই অবস্থা, আজ থেকে ব্যবহার করুন এই অব্যর্থ টোটকা

কেন কিডনিতে পাথর জমে, প্রথমে এই বিষয়ে ধারণা স্পষ্ট হওয়া প্রয়োজন। বিশেষজ্ঞদের মতে, এই স্টোন জমার সঠিকভাবে কোনও কারণ জানা না গেলেও কিছু কিছু বিষয়কে উল্লেখ করা হয়েছে যেমন, শরীরে ক্যালসিয়ামের মাত্রাতিরিক্ত আধিক্য, জল কম খাওয়া, বারবার কিডনিতে ইনফেকশন হওয়া সেই সঙ্গে অতিরিক্ত পরিমানে দুগ্ধজাত খাবার খাওয়ার ফলে কিডনিতে পাথর জমতে পারে। যদি কোনও ব্যক্তির প্রসাবের রঙ লালচে ধরনের হয় ও বেশিরভাগ সময় বমি বমি ভাব থাকে তবে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন। কারণ এই দুটি উপসর্গ হল কিডনিতে স্টোনের ইঙ্গিত।

আরও পড়ুন- মাত্র ২ সপ্তাহে কমবে ৫ কেজি ওজন, মেনে চলুন এই ম্যজিক ডায়েট

তাই এই সমস্যা এড়িয়ে চলার জন্য বা কখনও প্রসাব পেলে তা চেপে রাখবেন না। প্রসাবের বেগ আসলে সঙ্গে সঙ্গে প্রসাব করার চেষ্টা করুন। বারবার ইউরিন ইনফেকশন দেখা দিলে দ্রুত চিকিত্সকের পরামর্শ নিন। সেই সঙ্গে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি যুক্ত খাবার খান। পনির বা দুগ্ধজাত খাবার অতিরিক্ত মাত্রায় না খাওয়াই ভাল। সেই সঙ্গে অবশ্যই প্রচুর পরিমাণে জল পান করুন।