রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশই বাড়েছে। শুক্রবার সকাল পর্যন্ত কেন্দ্রীয় মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী আক্রান্তের সংখ্যা দেড় হাজার ছাড়িয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ১৫১ জনের। কিন্তু কেন হঠাৎ করে পশ্চিমবঙ্গে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। এই প্রশ্ন করা হলেও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় সরাসরি নিশানা করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে। তিনি বলেন, বাংলায় মুখ্যমন্ত্রীর আচরণের জন্যই এই পরিণতি। আজকে বাংলা যা ভাবে আগামী দিনে দেশ ও বিশ্ব তা ভাবববে। বাংলায় এই প্রবাদ দীর্ঘ দিনের পুরনো। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্ধ্যোপাধ্যায় সবকিছুর ক্ষেত্রে এই প্রবাদ খাটাতে চান। আর তাতেই ফল হয়েছে হিতে বিপরীত। নিজের দায়িত্ব মুখ্যমন্ত্রী পালন করছেন না বলেও অভিযোগ করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। 

বাবুল সুপ্রিয়র অভিযোগ, বাংলায় মৃত্যুর হার সবথেকে বেশি। এই রাজ্যে টেস্টে হচ্ছে না। নাইসেডে টেস্টিং কিটস পড়ে থাকা সত্ত্বেও পরীক্ষা করা হচ্ছে না বলে অভিযোগ। পাশাপাশি বাবুল সুপ্রিয় বলেন, করোনা নিয়ে দুটি কমিটি গঠন করা হয়েছে এই রাজ্যে। আসল পরিস্থিতি ধামাচাপা দিতেই এই উদ্যোগ বলেও অভিযোগ করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। নাইসেডে মার্চের প্রথম দিকে নমুনা পরীক্ষার জন্য ১০০টিরও বেশি কিট পাঠান হত রাজ্যের তরফ থেকে। কিন্তু বর্তামানে সেই সংখ্যাটা অনেকটাই কমে গেছে। পরিস্থিতি ধাপাচাপা দিতেই করোনা অডিট কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন বাবুল। আর সেই কমিটি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে আইসিএমআর। করোনাভাইরাস সংক্রমণ রুখতে রাজ্য তেমন চেষ্টা করছে না বলেও অভিযোগ করেন তিনি। 

আরও পড়ুনঃ অভিবাসী শ্রমিকদের মৃত্যুতে বেদনার্থ প্রধানমন্ত্রী, 'দেশ নির্মাতাদের' হত্যা বললেন রাহুল ...

আরও পড়ুনঃ মায়ের পর এবার পরিকল্পনা নিয়ে মোদীকে প্রশ্ন ছেলের, রাহুল বললেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে লড়াইয়ে ক্ষতি হবে...

বাবুল সুপ্রিয় কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষ দল পাঠান প্রসঙ্গেও রীতিমত একহাত নেন রাজ্য সরকারকে। তিনি বলেন, সবকটি রাজ্যেই কেন্দ্রীয় সরকার গাইডলাইন পাঠাচ্ছে। কিন্তু এই রাজ্যে কেন্দ্রীয় গাইডলাইন মানা হয়নি। হাওড়া, মেটিয়াবুরুজ প্রসঙ্গও উত্থাপন করেন তিনি। অভিযোগ করেন লকডাউনের মধ্যেও রাজ্যে ধর্মীয় সমাবেশ হয়েছে। যেসব রাজ্য খারাপ কাজ করছে সেইসব রাজ্যেই কেন্দ্রীয় পরিদর্শ পাঠান হয়েছে। পাশাপাশি তাঁর আরও অভিযোগ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সর্বদা নিজেকে স্পেশাল মনে করেন। কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার ভেদাভেদের উর্দ্ধে উঠেই করোনা মোকাবিলায় কাজ করছে বলেও তিনি জানিয়েছেন। 
পাশাপাশি বাবুল সুপ্রিয় বলেন অনেক বহুজাতিক সংস্থাই ভারতে কারখানা খুলতে চাইছে। তারজন্য পরিবেশ দফতর তৈরি বলেও জানিয়েছেন তিনি।