বিহার বিধানসভা নির্বাচনের ভোট গণনা চলছে। এই মুহূর্তে এনডিএ এগিয়ে ১২১ টি আসনের আর মহাজোট এগিয়ে রয়েছে ১১৪ আসনে। দেখা যাচ্ছে এনডিএ জোটে বিজেপি ৭২টি আসনে এগিয়ে থাকলেও জেডিইউ এগিয়ে মাত্র ৪১টি আসনে। এরমধ্যেই বিহারের মুখ্যমন্ত্রী তথা জেডিইউ প্রধান নীতিশ কুমার ফোন করলেন অমিত শাহ। তাহলে কি অন্য কাউকে মুখ্যমন্ত্রী করা হবে এনডিএ জোটের পক্ষ থেকে?

বিহারের মুখ্যমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ সূত্র দাবি করেছেন, ফের একবার নীতিশই মুখ্যমন্ত্রী হতে চলেছেন বলে আত্মবিশ্বাসী কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তাই তাঁকে অভিনন্দন জানাতেই ফোন করেছিলেন অমিত। তবে তাঁর এই ফোন নিয়ে বিহারের রাজনৈতিক মহলে জল্পনা তৈরি হয়েছে। ভোটের আগে বারবার করে বিজেপি-র কেন্দ্রীয় নেতারা জানিয়েছিলেন, বিহারে এনডিএ-র নেতা নীতিশ কুমারই। তবে বিহারের স্থানীয় বিজেপি নেতা-কর্মীরা ফলাফলের পর বিজেপি-র তেকেই মুখ্যমন্ত্রী হওয়া উঠিত বলে দাবি তুলেছেন।

আরও পড়ুন - মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ, গুজরাত - কমল ফুটছে উপনির্বাচনেও, ইভিএম নিয়ে প্রশ্ন তুললেন দিগ্বিজয়

আরও পড়ূন - বিহার নির্বাচন ২০২০, জোট বদলের ভেল্কি কীভাবে বদলে দিচ্ছে ফলাফল

আরও পড়ূন - নীতিশ কুমারকে ফোন করলেন অমিত শাহ - তবে কি বিহারে নেতা বদল, বাড়ছে জল্পনা

দলীয় নেতৃত্ব বারবার নীতিশকেই মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে তুলে ধরলেও বিহারের বিজেপির এসসি মোর্চার প্রধান অজিত কুমার চৌধুরী বলেছেন, বিহারের ভালোর জন্য, বিজেপির ভালোর জন্য এবং এনডিএ-র ভালোর জন্য বিহারে আগামী ৫ বছর বিজেপিরই মুখ্যমন্ত্রী হওয়া উচিত। তাঁর দাবি, বিজেপি জোট ধর্মে বিশ্বাসী হলেও দলের কর্মীরা মনে করছেন মুখ্যমন্ত্রী বিজেপিরই হতে হবে। কারণ দীর্ঘদিন মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ারে থাকায় নীতিশ-এর বিরুদ্ধে জনতার মনে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। ভোটের ফলে তাই প্রতিফলিত হয়েছে।