আবরও একটি সুড়ঙ্গের সন্ধান পাওয়া গেল জম্মু ও কাশ্মীরের আন্তর্জাতিক সীমান্তের কাছেই। বুধবার বিএসএফ জওয়ানরা এই সুড়ঙ্গটির সন্ধান পায়। কাঠুয়া জেলার হিরানগর সেক্টরে হদিশ পাওয়া সুড়ঙ্গটির দৈর্ঘ্য প্রায় ১৫০ মিটার। বিএসএফ-এর অ্যান্টি ট্যানেলিং দলের সদস্যরা প্রথামিক তদন্তের পর জানিয়েছেন সুড়ঙ্গটির ৯০ মিটার রয়েছে ভারতের দিকে। আর বাকি ৫০ মিটার রয়েছে পাকিস্তানের দিকে। লাইন অব কন্ট্রোলের ধারঘেঁসেই সুড়ঙ্গটি খোঁড়া হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তদন্তকারীরা। 

বিএসএফ- এর পক্ষ থেকে সুড়ঙ্গের জন্যসরাসরি দায়ি করা হয়েছে পাকিস্তানকে। সেনা বাহিনীর পক্ষ থেকে জানান হয়েছে, আধুনিক প্রযুক্তি ও উপযুক্ত ইঞ্জিনিয়াংরি পদ্ধতি ব্যবহার করেই সুড়ঙ্গ খোঁড়া হয়েছে। সুড়ঙ্গের মধ্যে দিয়ে সন্ত্রাসবাদীদের পাকিস্তান থেকে ভারতে পাঠানোই একমাত্র উদ্দেশ্য বলেও জানান হয়েছে। বিএসএফ জানিয়েছে, এখনও পর্যন্ত প্রায় ৯টি সুড়ঙ্গের সন্ধান পাওয়া গেছে। যারমধ্যে ২-৩টি সুড়ঙ্গ রয়েছে কাঠুয়া জেলায়। আর সেই কারণেই তদন্তকারীদের পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে আগামী দিন কাঠুয়াই হতে চলেছে জঙ্গি অনুপ্রবেশের অন্যতম একটি রাস্তায়। 

গুগুল ম্যাপে উল্লেখ নেই ডুবন্ত সেতুর, নদীর ওপর দিয়ে গাড়ি চালানোর ভয়ঙ্কর পরিণতি ...

গর্ভাবতী মহিলার ভ্রূণ বার করে নেওয়ার অপরাধ, ৫ দশক পর মহিলার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর আমেরিকায় ...
বিএসএফ-এর এক কর্তা জানিয়েছেন, কাঠুয়ার সুড়ঙ্গটি যেমন জিরো লাইন থেকে ৯০ মিটার দূরে। তেমনই কাঁটাতারের বেড়া থেকে ভারতীয় সীমানার দিকে মাত্র ২০ মিটার ভিতরে । সমস্ত দিক বিচার করে জম্মু ও কাশ্মীরের সীমান্তবর্তী এলাকায় আরও কড়া নজরদারী  চালানোর হতে পারে। গতকালই সেনাপ্রধান এমএম নারাভানে বলেছিলেন পাকিস্তান রাজনীতি আর সন্ত্রাসবাদকে এক করে ফেলেছে। এর আগেই এজাতীয় একাধিক সুড়ঙ্গের সন্ধান পাওয়া গেছে। বর্তমানে সীমান্তবর্তী এলাকগুলিতে নজরদারী বাড়া হয়েছে। সেই কারণেই ড্রোনের সাহায্যে অস্ত্র আর সুঙ্গের মধ্যে দিয়ে সন্ত্রাসবাদী ভারতে পাঠানোর চেষ্টা করেছে পাকিস্তান। তেমনই অভিযোগ তদন্তকারীদের।