জ্যোতিরাদিত্য দল বদল করে বিজেপিতে যোগদানে কড়া বড় ধাক্কা খেয়েছে কংগ্রেস। শুক্রবার কিন্তু কিছুটা  হলেও স্বস্তি পেয়েছে সংসদে। ৭ সাত কংগ্রেস সাংসদের ওপর থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে সাসপেনশন। বাজেট অধিবেশনে বারবার বাধা দেওয়া অভিযোগ তুলে গত সপ্তাহেই সাসপেন্ড করা হয়েছিল ৭ বিধায়ককে। বুধবার লোকসভা স্পিকার তাঁদের প্রত্যের ওপর থেকে তুলে নেয় সাসপেনশন। এদিন প্রথম দফায় দলের ৭ সিংসদের ওপর থেকে সাসপেনশন তুলে নেওয়ার আর্জি জানিয়েছিলেন কংগ্রেস সাসংদ অধীর চৌধুরী। 

 

আরও পড়ুনঃ মদ্যপ অবস্থায় ৩ বছরের শিশুকে ধর্ষণ, ঘটনাস্থল সেই কাঠুয়া

গত শুক্রবার সকাল থেকেই সুর চড়া ছিল কংগ্রেস সাংসদদের। প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে দিল্লির হিংসা নিয়ে আলোচনার দাবি জানান। প্রথমে স্পিকার জানিয়েছিলেন এটা দিল্লির হিংসা নিয়ে আলোচনার সঠিক সময় নয়। তারপরই কংগ্রেস বিধায়করা ওয়েলে নেমে হইচই শুরু করে দেন। স্পিকারের টেবিল থেকে কাগজপত্র নিয়ে ছুঁড়ে ফেলে দেন। এরপরই অশোভন আচরণের অভিযোগ তুলে সাসপেন্ড করা হয়েছিল কংগ্রেসের সাত সাংসদকে।  কেরলের চার সাংসদ টি এন প্রথাপন, ডিন কুরিয়াকোসে, রাজমোহন উন্নিথন ও বেন্নি বেহননকে সাসপেন্ড করেন স্পিকার। পাশাপাশি সাসপেন্ড করা হয় অসমের গৌরব গগৈ, পঞ্জাবের গুরজিৎ সিং আউজলা ও তামিলনাড়ুর মনিকা টেগোরকে। তারপরই শুরু হয়ে যায় তুমুল হৈইহট্টোগ। গত মঙ্গলবার পর্যন্ত সংসদের অধিবেশন স্থগিত রাখা হয়েছিল।  

আরও পড়ুনঃ মধ্যপ্রদেশের সংকট নিয়ে মুখ খুললেন রাহুল, সিন্ধিয়া নয় নিশানায় মোদি

আরও পড়ুনঃ হাসলেন না একবারও, কাষ্ঠল মুখেই পদ্ম ধরলেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া

সেই দিনই ঘোষণা করা হয়েছিল ১১ মার্চ সংসদে দিল্লির হিংসা নিয়ে আলোচনা হবে। এদিন সেই মত সংসদে আলোচনা শুরুও হয়। রাত আটটা নাগাদ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ দিল্লির হিংসা নিয়ে সংসদে বিবৃতি দিতে পারেন। এদিনও কংগ্রেস সাংসদ অধীররঞ্জন চৌধুরী নিশানা করেন অমিত শাহকে। তিনি বলেন দিল্লিতে যখন আগুন জ্বলছিল তখন অমিত শাহ কী করছিলেন? এর উত্তর দিতেই হবে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে।  অন্যদিকে বিজেপির সাংসদ মীণাক্ষি লেখি ৮৪-র শিখ দাঙ্গার কথা উল্লেখ করে নিশানা করেন কংগ্রেসকে।