পাইলটকে মুখ্যমন্ত্রী না করার দাবিতে ৯০ জন বিধায়কের পদত্যাগ, ইস্তফা ঝড়েই লুকিয়ে গেহলটের মাস্টারপ্ল্যান?

| Sep 26 2022, 07:37 AM IST

পাইলটকে মুখ্যমন্ত্রী না করার দাবিতে ৯০ জন বিধায়কের পদত্যাগ, ইস্তফা ঝড়েই লুকিয়ে গেহলটের মাস্টারপ্ল্যান?

সংক্ষিপ্ত

সোনিয়ার নির্দেশে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক কেসি ভেনুগোপালও গভীর রাতে গেহলটের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন, কিন্তু গেহলট তাঁকে স্পষ্ট জানিয়ে দেন যে পরিস্থিতি এখন তাঁর নিয়ন্ত্রণে নেই। তবে গেহলট মুখে বলছেন অন্য কথা। তাঁর দাবি কংগ্রেস তাকে ৪০ বছরে অনেক কিছু দিয়েছে, এখন নতুন প্রজন্মকে সুযোগ দেওয়া উচিত।

কংগ্রেস সভাপতি নির্বাচন রাজস্থান সরকারের জন্য যেন ইস্তফার ঝড় তুলেছে। সূত্রের খবর দলের কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক মল্লিকার্জুন খাড়গে এবং রাজ্যের ইনচার্জ অজয় মাকেন চেয়েছিলেন বিধায়ক দলের বৈঠকে এক লাইনের প্রস্তাব পাস করে মনোনয়ন জমা দেওয়ার আগে মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের উত্তরসূরির নাম নির্ধারণের অধিকার সোনিয়াকে হস্তান্তর করা হোক, কিন্তু গেহলট গোষ্ঠী এর জন্য প্রস্তুত ছিল না। গেহলটপন্থী বিধায়করা স্পষ্ট বলেছেন যে মুখ্যমন্ত্রীর মতামত ছাড়া সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত নয়। 

এদিকে, পাইলটকে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দেখতে রাজি নন, এই দাবি রেখে, গেহলট শিবিরের ৯০জনেরও বেশি বিধায়ক রবিবার রাতে বিধানসভার স্পিকার সিপি জোশীর কাছে তাদের পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। তাদের মধ্যে স্বতন্ত্র বিধায়করাও ছিলেন। পরে সোনিয়া খড়গে এবং মাকেনকে প্রত্যেক বিধায়কের সঙ্গে দেখা করে তাদের মতামত জানতে বলেন। এই পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বড় প্রশ্ন উঠছে রাজস্থানে কি নিজের সরকারের পতন ঘটাতে চলেছেন গেহলট? 

Subscribe to get breaking news alerts

সোনিয়ার নির্দেশে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক কেসি ভেনুগোপালও গভীর রাতে গেহলটের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন, কিন্তু গেহলট তাঁকে স্পষ্ট জানিয়ে দেন যে পরিস্থিতি এখন তাঁর নিয়ন্ত্রণে নেই। তবে গেহলট মুখে বলছেন অন্য কথা। তাঁর দাবি কংগ্রেস তাকে ৪০ বছরে অনেক কিছু দিয়েছে, এখন নতুন প্রজন্মকে সুযোগ দেওয়া উচিত।

পাইলটকে পদ দিতে চান না গেহলট
রবিবার রাজস্থানে যে রাজনীতি দেখা গেল, তার চিত্রনাট্য একদিনে লেখা হয়নি। রাহুল গান্ধীর আপত্তির পর অশোক গেহলটের ভাষা বদলে যেতে পারে, কিন্তু কংগ্রেস সভাপতি হয়ে গেলেও মুখ্যমন্ত্রীর পদ ছাড়তে রাজি নন তিনি। শুধু তাই নয়, প্রাক্তন উপমুখ্যমন্ত্রী শচীন পাইলটকে কোনও অবস্থাতেই সিংহাসন দিতে চান না তিনি। এমন পরিস্থিতিতে তার উত্তরসূরি নির্বাচন সহজ হবে না বলে স্পষ্ট ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। এই কারণেই রবিবার বিধানসভা দলের বৈঠকের আগেও রাজনৈতিক মহলে রাজনৈতিক ঝড়ের শব্দ অনুভূত হয়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন এই ইস্তফা ঝড়ের মধ্যেই লুকিয়ে আছে গেহলট শিবিরের গেমপ্ল্যান। আসলে, গেহলট তার সরকারকে পতন করতে চান না, বরং তিনি কংগ্রেস হাইকমান্ডের উপর চাপ দেওয়ার চেষ্টা করছেন যে রাজস্থানের সিদ্ধান্ত তাদের সম্মতির ভিত্তিতে করা উচিত। তিনি চান পাইলট এবং তার ঘনিষ্ঠ বিধায়ক ব্যতীত অন্য কাউকে ক্ষমতা দেওয়া হোক, যারা ২০২০ সালে বিদ্রোহী মনোভাব দেখিয়েছেন, যার মধ্যে স্পিকার সিপি জোশী রয়েছেন। গেহলট গোষ্ঠীর সমস্ত বিধায়ক স্পিকারের কাছে তাদের পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন, তবে স্পিকার তাদের গ্রহণ না করা পর্যন্ত তাদের সদস্যপদ শেষ হবে না। পদত্যাগের বিষয়ে স্পিকার এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেননি।

আরও পড়ুন-
ভারতে যখন দেবীপক্ষ, ইরানে উড়ছে নারীদের চুলের ধ্বজা, ‘বরদাস্ত করব না’, হুঁশিয়ারি প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির
হাসপাতালের পথে হঠাৎ বিকল অ্যাম্বুলেন্স, গুরুতর অসুস্থ রোগীর উদ্ধারে নিজেই লেগে পড়লেন কলকাতা পুলিশের সুপ্রভাত
হোটেলের অতিথিদের ‘বিশেষ সার্ভিস’ দিতে বলা হয়েছিল অঙ্কিতাকে, জলে ডুবে গেলেও কেন তাঁর দেহে মিলল আঘাতের চিহ্ন?

Read more Articles on
,,