সোমবার রাতেই জানান হয়েছিল মঙ্গলবার বিকেল ৪টে নাগাদ জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর এদিন প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের কিছু আগেই একটি ভিডিও পোস্ট করেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। সেই ভিডিওতেই লাদাখ ইস্যুতে সুর চড়ান রাহুল গান্ধী। তিনি বলেন, গোটা দেশ জানতে চায় লাদাখে কী পরিস্থিতি রয়েছে বর্তমানে। 

প্রথমে তিনি অবশ্য করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে দেশের আর্থিক পরিকাঠামো ভেঙে পড়ার কথা উল্লেখ করেন। তিনি বলেন করোনা সংক্রমণের প্রথম থেকেই দেশের আর্থিক আর্থিক পরিকাঠামো ভেঙে পড়ার কথা বলে আসছে কংগ্রেস। পাশাপাশি কংগ্রেস এও বলেছেন এই সবথেকে বেশি সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে দেশের আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া মানুষদের। সমস্যায় পড়তে হবে মধ্যবিত্ত ও বেতনভুক শ্রেণিকে। আর্থিক সংকট কাটিয়ে ওঠার জনন্য ন্যায় প্রকল্প চালানোর কথা এদিন আবারও বলেন রাহুল গান্ধী। তিনি বলেন স্থায়ী নয় মাত্র ৬ব মাসের জন্য হলেও ন্যায় প্রকল্পের মাধ্যমে সরাসরি দেশের  আর্থিক ভাবে পিছিয়ে পড়া মানুষের হাতে টাকা দিক কেন্দ্রীয় সরকার। ন্যায় প্রকল্পকে হাতিয়ার করেই লোকসভা নির্বাচনে লড়াইয়ের ময়দানে নেমেছিল কংগ্রেস। তিনি বলেন ন্যায় প্রকল্পের মাধ্যমে প্রত্যেক গরিব মানুষের ব্যাঙ্ক অ্য়াকাউন্টে মাসে ৭,৫০০ টাকা দেওয়া হোক। এরফলে চাহিদা তৈরি হবে। আর্থনীতির চাকা আবারও ঘুরতে শুরু করবে। 

 রাহুল গান্ধী বলেন একবার নয় তিন চারবার ন্যায় প্রকল্প চালু করার কথা বলেছে কংগ্রেস। কিন্তু আর্থিক সংকটের কারণ দেখিয়ে পিছিয়ে এসেছে সরকার। কিন্তু দেশ সদ্যোই প্রায় ১৫ জনের ধনী ব্যক্তির ঋণ মকুব করা হয়েছে বলে আবারও অভিযোগ তোলেন রাহুল। প্রসঙ্গক্রমে এদিন জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির কথাও উত্থাপন করেন তিনি। বলেন, লাগাতার পেট্রোল আর ডিজেলের দাম বাড়িয়ে চলছে সরকার। কেন্দ্রীয় সরকারের ভাঁড়াতে ৩ লক্ষ কোটি টাকা মজুত রয়েছে বলেও দাবি করেছেন কংগ্রেস সাংসদ। 

নতুন সোয়াইন ফ্লুর সন্ধান চিনের বিজ্ঞানীদের, যা নিয়ে রয়েছে মহামারির অশনি সংকেত ...

সমস্ত দায় নিতে হবে ভারতকেই, চিনা অ্যাপ ব্যান করায় বেজায় চটে হুমকি বেজিং-এর .

এরপরই তিনি চলে আসেন লাদাখের প্রসঙ্গে। ভিডিও বার্তায় সরাসরি প্রশ্ন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে। কবে এবং কী ভাবে লাদাখ থেকে চিনা পিপিলস আর্মির সেনাদের বাইরে বার করে দেবেন প্রধানমন্ত্রী।  তার আগেই রাহুল বলেছিলেন  গোটা দেশ জানে লাদাখে ভারতের প্রবিত্র ভূমি অধিকার করেছে চিনা সেনা। প্রায় ৪টি জায়গায় অধিগ্রহণ করে বসে রয়েছে লাল ফৌজ। 

সীমান্ত বৈঠক চলাকালীন 'সবথেকে খারাপ পরিস্থিতির জন্য' তৈরি ভারত, গালওয়ানে মোতায়েন ৬টি টি-৯০ ট্যাঙ্ক ...