চিনের থেকেও ইতালিতে ভয়াবহ আকার নিয়েছে করোনা  ভাইরাস। একদিনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১৩৩জনের মৃত্যু দেখল ইতালি। চিনের পরেই মারাত্মক অবস্থা ইতালিতে। সেখানে দেড় কোটি মানুষকে একেবারে আলাদা রাখার মতো সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন।  নভেল করোনা ভাইরাস সংক্রমণ এখন ইতালিতে ঘরে ঘরে।

রাজ্য়সভায় বাম-কংগ্রেসের প্রার্থী কি কানহাইয়া,নাম ঘিরে জোর জল্পনা

চিনে ছড়িয়ে গিয়েছিল আগেই। এবার ইউরোপের অন্যতম প্রধান দেশ ইতালিতে হানা দিয়েছে এই মারণ রোগ। ইতালিক একাদিক সংবাদ মাধ্য়ম নিশ্চিত করেছে, একদিনে সেখানে ১৩৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। লাফিয়ে বেড়ে চলেছে মৃতের সংখ্যা। ইতালির সরকারি তথ্য় বলছে, রবিবার দিনের শেষে এই রোগ কেড়েছে ১৯ জনের প্রাণ। সব মিলিয়ে  মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৬৬।

স্বস্তিতে রাজ্য়বাসী, মুর্শিদাবাদের মৃত যুবকের দেহে পাওয়া গেল না করোনা ভাইরাস

পরিসংখ্যান বলছে, বিশ্বে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যায় চিনের পরই ইতালির স্থান। এই ভাইরাসে চিনে ইতিমধ্য়েই প্রাণ হারিয়েছেন বহু মানুষ। তবে  চিন ও ইতালির পর মৃতের সংখ্যায় তৃতীয় নম্বরে রয়েছে ইরান। যেখানে মারা গিয়েছেন ১৯৪ জন। এছাড়া ফ্রান্সে ১৯ জন, স্পেনে ১৭ জন ও আমেরিকায় ১৯ জনের মৃত্যু ঘটিয়েছে করোনা ভাইরাস। বিশ্বজুড়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ৮০২। বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৯ হাজার ৬৯৬। এর মধ্যে প্রায় ৬১ হাজার জন সেরেও উঠেছেন।

দোল নিয়ে দুশ্চিন্তায় শান্তিপুর, ইতিমধ্য়েই এসে হাজির বিদেশিরা

একদিনে আক্রান্তের সংখ্যা সবেচেয়ে বেশি বেড়েছে ইতালিতে ১ হাজার ৪৯২ জন। স্বাস্থ্য় মন্ত্রক জানিয়েছে, ভারতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৪২ জন। তবে এখনও কোনও মৃত্যুর ঘটনা ঘটেনি। গতকালই সৌদি থেকে আগত মুর্শিদাবাদের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। সন্দেহ করা হয়েছিল করোনাতেই মারা গিয়েছে ওই যুবক। তবে দেহের নমুনা সংগ্রহ করে দেখা গিয়েছ, তার দেহে করোনার ভাইরাস ছিল না। রাজ্য় সরকারের এই বার্তায় স্বস্তি পেয়েছে রাজ্য়বাসী।