কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে পাকিস্তান এবার সরব হবে রাষ্ট্রসঙ্ঘের মানবাধিকার কাউন্সিল (ইউএনএইচআরসি)-এ। পাকিস্তানের পররাষ্ট্রবিষয়ক মন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি সোমবারই জেনেভার উদ্দেশ্য রওনা দিয়েছেন। সেখানে রাষ্ট্রসঙ্ঘ মানবাধিকার কাউন্সিলের ৪২ তম অধিবেশনে অংশ নেবেন তিনি। অধিবেশন চলবে চলতি মাসের ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। 

সূত্রের খবর, শাহ মাহমুদ কুরেশি যে কেবলমাত্র, কাশ্মীর ইস্যুটি এই অধিবেশনে উত্থাপন করবেনই না, সেইসঙ্গে কাশ্মীর ইস্যুকে কেন্দ্র করে পাকিস্তানের পক্ষে সমর্থন আদায়েরও চেষ্টা করবে বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল। আর সেই কারণেই কাশ্মীর ইস্যুকে কেন্দ্র করে রাষ্ট্রসঙ্ঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে যাতে একটা বিশেষ অধিবেশনের আয়োজন করা যায় সেই প্রচেষ্টাই করা হচ্ছে পাকিস্তানের তরফে এবং সেইসঙ্গে কাউন্সিলেম ৪৭ জন সদস্যের মধ্যে অন্ত ১৬ জনের সমর্থন যাতে আদায় করা যায় সেই চেষ্টাই করা হচ্ছে বলে খবর। 

ফের ভোলবদল ট্রাম্পের, কাশ্মীর ইস্যুতে মধ্যস্থতা করতে চাইলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট

মানুষকে ভয় দেখিয়ে সন্ত্রাসবাদী পোস্টার প্রকাশ, উপত্যকায় পুলিশের জালে ৮ লস্কর জঙ্গি

কাশ্মীর নিয়ে অশান্তির জের, জঙ্গি হামলা হতে পারে দক্ষিণ ভারতেও, প্রস্তুত সেনাবাহিনী

নজির গড়ল ভারতীয় সেনা, বিশ্বের অষ্টম সর্বোচ্চ পাস-এ পা রাখল আট সদস্যের দল

প্রসঙ্গত, দ্য অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশন-এর সদস্য দেশগুলি ইউএনএইচআরসি-তে একটা গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করছে, কারণ দ্য অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশন-এর অন্তত ১৫ সদস্য ইউএনএইচআরসি-রও পূর্ণ সদস্য। মঙ্গলবার জেনেভায় অনুষ্ঠিত অধিবেশনে বক্তব্য রাখতে চলেছেন শাহ মেহমুদ কুরেশি। অন্যদিকে এই অধিবেশনে ভারতের তরফেও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে পাল্টা আক্রমণ শানানোর চেষ্টা করা হচ্ছে যাতে পাকিস্তান কোনওভাবেই কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে তাদের তরফে কোনও সিদ্ধান্ত না ঘোরাতে পারে। 

ভারতের তরফে এই অধিবেশনের নেতৃত্ব দেবেন বিদেশ মন্ত্রকের সচিব তথা পাকিস্তান থেকে বহিস্কৃত ভারতের হাই কমিশনার অজয় বিসারিয়া। তবে ভারতের তরফে কোনও কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে এই অধিবেশনে যোগ দেওয়ার জন্য পাঠানো হয়নি। তবে পাকিস্তানের তরফে কাশ্মীর ইস্যুতে পাল্লা যাতে তাদের দিকে ভারি হয় সেই চেষ্টাই চালাচ্ছে।