'বছর ঘুরে মা যে আবার এল ফিরে' এই বার্তার সঙ্গেই দুর্গা পুজোর আয়োজন শুরু করেছে বিভিন্ন পুজো কমিটিগুলি। ইতিমধ্যেই পাড়ায় পাড়ায় বাঁশ পড়ার শব্দ শুরু হয়ে গিয়েছে। আর পুজোটা যদি কলকাতার হয় তাহলে তো কোনও কথাই নেই। তার ওপর আবার থিম পুজোর দৌড়ে কলকাতা তো একেবারেই শীর্ষে। আর তার মধ্যে সেরার লড়াইয়ে এগিয়ে থাকতে প্রস্তুতি নিচ্ছে ক্লাবগুলি। সেই মতই এবছরে আবার এক নতুন থিমে তাদের মণ্ডপ সজ্জিত করতে চলেছে হরিহর নগর ওয়েলফেয়ার সমিতি।

আরও পড়ুনঃ নাম লেখাননি এখনও, দেরি না করে অংশ নিন এশিয়ানেট নিউজ শারদ সম্মান ২০১৯-এ 

৭০ তম বর্ষে পদার্পণ করতে চলেছে এই ক্লাব। অন্যান্য বছরের মত এবছরেও নতুনত্ব থিমে সেজে উঠবে তাদের পুজোমণ্ডপ। এবার তাদের নতুন ভাবনা 'পিপীলিকার দেশে'। থিমের এই নাম দেখে নিশ্চয় বোঝা যাচ্ছে যে পিপীলিকার দেশ অভিযানে যেতে চলেছে এবার সমস্ত দর্শনার্থীরা। পিপীলিকা আমাদের সমাজবন্ধু। তারা ছোট বলে তাদের তুচ্ছ ভাবা উচিত নয়। কারণ তুচ্ছ প্রাণীরাও অনেকসময় অসাধারন সমাজবান্ধব হয়। পিপীলিকার ক্ষেত্রেও তার অন্যথা নয়। সমাজের ইকো ব্যালান্সিং হিসাবে কাজ করে পিপীলিকা। আর বলাই বাহুল্য যে তাদের মধ্যে যে শৃঙ্খলা রয়েছে তা সমাজকে সংস্কারমুক্ত করে শিক্ষার বার্তা দেয়। 

আরও পড়ুনঃ সামাজিক সচেতনতায় অঙ্গীকারবদ্ধ বাঁশদ্রোণি একতা, কেমন হবে তাদের পুজোর থিম!

গতবছরেও এক অভিনব থিম দর্শনার্থীদের উপহার দিয়েছিল হরিহর নগর ওয়েলফেয়ার সমিতি। গতবছর তাদের থিম ছিল 'বঙ্গ সংস্কৃতির অঙ্গনে'। বাংলার সভ্যতা ও সংস্কৃতির অসাধারন মেলবন্ধন ফুটে উঠেছিল তাদের প্যান্ডেলে। তবে এবার চমকটা ঠিক অন্যরকম। পিপীলিকার দেশ আসলে কেমন তা একদম চোখের সামনে জ্বল জ্বল করবে সকলের। তাই পিপীলিকার দেশে একবার ঘুরে এসেই দেখুন। আশা করা যায় মন্দ লাগবে না। 

এই ক্লাবের ঠিকানা হল ৭৫, মল্লিকপাড়া লেন, দমদম, হরিহর নগর, কলকাতা ৭০০০৫৫