১৮২ জন তরুণীর  অশ্লীল ভিডিও ব্ল্যাকমেল করতে গিয়ে অবশেষে পুলিশের জালে ধরা পড়ল কলকাতার ৩ যুবক।  ২০১৩ সাল থেকে একের পর এক তরুণীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে জড়িয়ে তাঁদের নগ্ন ভিডিও তুলে রেখেছিল কলকাতার দুই যুবক। পরে সেই ভিডিও দেখিয়ে ব্ল্যাকমেল করে অনেক টাকা কামাতে গিয়েছিল তারা। অবশেষে কলকাতা পুলিশ হাতেনাতে ধরে ফেলল দুই যুবক সহ মোট তিনজনকে। 

আরও পড়ুন, সরস্বতী পুজোর সকালে ঝেঁপে বৃষ্টি নামল শহরে, তাপমাত্রা স্বাভাবিকের ৪ ডিগ্রি উপরে

পুলিশি সূত্রে খবর, গত বছর নভেম্বর মাসে এক তরুণীর কাছে ফোন করে এক অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি হুমকি দেয়, তার কাছে তরুণীর নগ্ন ভিডিও রয়েছে। ১০ লক্ষ টাকা না দিলে  ওই ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়া হবে। প্রথমে এই ঘটনায় ভয় পেয়ে যায় ওই তরুণী। তারপর লালবাজারের সাইবার ক্রাইম ডিপার্টমেন্টে অভিযোগ করেন তিনি। তারপরই তদন্তে নেমে পড়ে লালবাজারের সাইবার ক্রাইম সেল। উঠে আসে নতুন তথ্য়। ফোনের নম্বর ট্রেস করেই গ্রেফতার করা হয় কৈলাশ যাদব নামের এক ব্যক্তিকে। তাদের জেরা করতেই বেরিয়ে আসে অনেক তথ্য, যা শুনে অবাক হয়ে যাচ্ছেন পুলিশ আধিকারিকরাই।  ২০১৩ সাল থেকে একের পর এক তরুণীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে জড়িয়ে তাঁদের নগ্ন ভিডিও তুলে রেখেছিল ধৃত যুবকরা। আর তারপর সোশ্য়ালমিডিয়া পোস্ট করে দেওয়া হুমকি দিয়ে বড়সড় আয়ের রাস্তা খোঁজে তারা। পুলিশি সূত্রে খবর, এক তরুণীর কাছে ৫ লক্ষ টাকা নিয়েছে বলেও স্বীকার করেছে ধৃত ব্য়াক্তি।

আরও পড়ুন, কলকাতায় ফের বাড়ছে পেঁয়াজের দাম, মূল্য়বৃদ্ধিতে লাগাম পরাতে তৎপর রাজ্য সরকার

লালবাজার সূত্রে খবর, কৈলাশকে দফায় দফায় জেরা করে আনিশ লোহারকর ও আদিত্য আগরওয়াল নাম জানতে পারে পুলিশ। আনিশের কাছেই কাজ করত কৈলাশ এবং আদিত্য এক নামী পোশাক বিপণি সংস্থার মালিকের ছেলে। এরপর দুজনকেই গ্রেফতার করে পুলিশ। মঙ্গলবার আনিশ ও আদিত্যকে ব্যাঙ্কশাল কোর্টে তোলা হয়। তাদের ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পুলিশি হেফাজতে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।