এবার সুশান্ত সিং রাজপুত মৃত্যু রহস্যে মুখ খুললেন অধীর চৌধুরী। যেভাবে মামলার গতিপ্রকৃতি এগোচ্ছে তার পিছনে বিজেপি সরকারের হাত রয়েছে বলে মন্তব্য করেন লোকসভায় কংগ্রেসের পরিষদীয় দলনেতা। প্রকাশ্য়ে সমর্থন না করলেও রিয়াকে বাঙালি ব্রাহ্মণ কন্য়া বলেই সম্বোধন করেন তিনি।  

পরীক্ষায় ফেল দিদির বিধায়ক, বিধানসভায় এসেও মিলল না প্রবেশের অনুমতি  

সুশান্ত মামলায় ইতিমধ্য়েই গ্রেফতার করা হয়েছে বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তীকে। মঙ্গলবার রিয়াকে গ্রেফতার করার পর বাইকুলা সংশোধনাগারে রাখা হয়েছে। রিয়ার প্রসঙ্গে মুখ খুলেছেন তাঁর আইনজীবী সতীশ মানশিণ্ডে। তিনি বলেন,  একজন নেশাগ্রস্ত, মানসিক রোগীকে ভালবাসার ফল ভুগতে হচ্ছে রিয়াকে। এদিন রিয়া দোষী না নির্দোষ তা নিয়ে মন্তব্য় করেননি অধীর।

পিসির রাজত্বে ভাইপোর কীসের ভয়,কঙ্গনা প্রসঙ্গে মহুয়াকে পাল্টা বাবুলের.

যদিও কংগ্রেসের এই ডাকসাইটে নেতা বলেন, রিয়া চক্রবর্তীও বাঙালি ব্রাহ্মণ মেয়ে। তাঁর বাবা সেনার অঙ্গ হিসেবে দেশের সেবা করেছেন। সুশান্ত সিং রাজপুতকে সুবিচার দেওয়া যেন একজন বিহারীকে বিচার দেওয়ার রূপ না নেয়। এই বলেই অবশ্য় থেমে থাকেননি প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি। বহরমপুরের সাংসদ বলেন, সুশান্ত সিং রাজপুত একজন জনপ্রিয় অভিনেতা ছিলেন। তিনি  দেশবাসীর অনেক ভালবাসা পেয়েছেন। কিন্তু দুঃখের বিষয়, বিজেপি তাঁকে শুধু বিহারের অভিনেতা হিসেবে তুলে ধরতে চাইছে।

ফাইল দিচ্ছে না ইডি, রোজভ্যালি তদন্ত নিয়ে সিবিআইয়ের সঙ্গে সংঘাত

এ প্রসঙ্গে রিয়ারও নাম নেন অধীর। সাংসদ বলেন, রিয়া চক্রবর্তীকে কিন্তু সুশান্তের মৃত্যুতে প্ররোচনা দেওয়ার জন্য গ্রেফতার করা হয়নি। তাঁকে মাদক যোগের অভিযোগে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো হেফাজতে নিয়েছে। কেবল দেশবাসীর নজর ঘোরাতেই কেন্দ্রের বিজেপি সরকার এই কাজ করছে। দেশের অর্থনৈতিক সংকট এবং করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় সরকারের ব্যর্থতা ঢাকতেই সুশান্ত মামলাকে তুলে ধরা হচ্ছে। 

"