কড়া ভাষায় পদত্যগপত্র পাঠিয়ে মিল্লি আল আমীন কলেজের অধ্যক্ষ পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন বৈশাখী বন্দ্য়োপাধ্যায়। এদিন শিক্ষা দফতের পৌঁছে গিয়েছে তাঁর পদত্য়াগপত্র। যদিও এ নিয়ে কোনও মন্তব্য় করেননি শিক্ষামন্ত্রী।

করোনার নাম ভাঁড়িয়ে ডাকাতি, মাস্ক পরে দিনেই সোনার দোকান লুঠ

সূত্রের খবর ,কদিন আগেই কলেজের পরিচালন সমিতির বৈঠকে চূড়ান্ত অপমানিত হন বৈশাখী বন্দ্য়োপাধ্যায়। খোদ শিক্ষামন্ত্রী তাঁকে বেনজির আক্রমণ করেছে বলে  খবর। সূ্ত্র মারফত জানা গিয়েছে, বৈঠক থেকে চোখে জল নিয়ে বেরিয়ে যান কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বান্ধবী। ভিতরের খবর, মিল্লি আল আমিন কলেজের পরিচালন সমিতির বৈঠকে ঢুকতেই বৈশাখীকে করোনা ভাইরাসের সঙ্গে তুলনা করেন শিক্ষামন্ত্রী। যা শুনে হতবাক হন খোদ কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ। এখানেই থেমে থাকেনি অপমানের পালা। 

৬ মাস বিনামূল্য়ে রেশন দেবে রাজ্য়, করোনা আতঙ্কে ঘোষণা মুখ্য়মন্ত্রীর

জানা গিয়েছে,কলেজের বেশকিছু শিক্ষকের সঙ্গে বনিবানা নেই বৈশাখীর। অতীতেও এ নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর কাছে অভিযোগ করেছেন তিনি। এদিন সেই বৈঠকে তাঁকে ডেকে অপমান করা হয়। এমনকী সবাইকে চা দেওয়া হলে প্রথমে চায়ের বিষয়ে বলা হয়নি তাঁকে। পরে পার্থ জানিয়ে দেন কলেজের কিছু শিক্ষকের সুযোগ সুবিধা তিনি কমাতে চান। যার তীব্র প্রতিবাদ করেন বৈশাখী। অধ্যক্ষা জানান, বিশ্ববদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের নিয়ম অনুযায়ী এরকম করা যায় না। 

কোটি কোটি টাকা ঢুকছে অ্যাকাউন্টে, ৩০ টি গ্রুপের অ্যাডমিন 'জঙ্গি যুবতী'

যা শুনে সুর চড়ান শিক্ষামন্ত্রী। সূত্রের খবর, এ বিষয়ে শেষকথা বলবেন তিনিই-তা জানিয়ে দেন শিক্ষামন্ত্রী। যা শুনে বৈশাখী বিরোধী গোষ্ঠী হাসতে শুরু করে। আবভাবে বুঝিয়ে দেন, শিক্ষামন্ত্রীর কথায় খুশি তাঁরা। পরে বৈশাখীর আশায় শেষ পেরেকটা পোঁতেন পার্থবাবু। তিনি জানিয়ে দেন বৈশাখীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে অপমানজনক কথা বলা ব্য়ক্তিকেই মিল্লি আল আমিন কলেজে গুরুত্বপূর্ণ পদে বসাচ্ছেন তিনি। 

কালীঘাটে কান পাতলে শোনা যাচ্ছে, নবান্নে মুখ্য়মন্ত্রীর সঙ্গে বৈশাখীর বৈঠক ভালো চোখে নেননি পার্থবাবু। কদিন আগেই বেহালায় শোভনের জায়গায় তাঁর স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়কে প্রচারের মুখ করেন পার্থবাবু। কিন্তু মমতার সঙ্গে বৈশাখীর বৈঠকের পরই বদলে  যায় চিত্র। নিজেই ওই পদ থেকে সরে যান রত্না। ওই স্থানে আসেন শোভন চট্টোপাধ্য়ায় ঘনিষ্ঠ সুশান্ত  ঘোষ। মনে করা হচ্ছে, যা ভালো চোখে দেখেননি তৃণমূলের মহাসচিব। এদিন কলেজের পরিচালন কমিটির বৈঠকে তার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে।  

নিজে এ নিয়ে মুখ খুলেছেন বৈশাখীও। তিনি জানান কলেজকে ভালোবাসেন তিনি। তাঁর অনেক বকেয়া রয়েছে। যা নিয়ে পার্থবাবুর সঙ্গে কথা হয়। তিনি যে এমন ব্যবহার করবেন তা বুঝতে পারেননি।  জানা গিয়েছে, মিটিং থেকে চোখে জল নিয়ে বেরোনোর সময়ই বৈশাখী নিয়ে খোঁচা দিতে ছাড়েননি শিক্ষামন্ত্রী। সবার সামনেই তিনি বলেন, এবার  তাঁর বিরুদ্ধে নবান্নে অভিযোগ জানাতে চললেন বৈশাখী। 

এর আগেও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় মিল্লি আল আমিন কলেজের অধ্যক্ষের পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছিলেন। কিন্তু তখন তাঁর পদত্যাগপত্র গৃহীত হয়নি। পার্থ চট্টোপাধ্যায় তাঁকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষা হিসেবে কাজ চালানোর নির্দেশ দেন। তখন কলেজের আভ্যন্তরীণ সমস্যা মিটিয়ে দেওয়ার আশ্বাসও দেন শিক্ষামন্ত্রী। এবার সেই শিক্ষামন্ত্রীর কাছেই অপমানিত হয়ে চলে যেতে হল বৈশাখীকে।