কলকাতা বিমানবন্দরে এসে পৌছলেন বিজেপির কৈলাশ বিজয় বৈর্গী। 'ভারতীয় জনতা পার্টীর প্রভাব বাড়তেই আরও ঘাবড়ে যাচ্ছেন মমতা। মমতার সরকারের পুলিশ রাজ্যে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। বিমান বন্দরে এসেই এমনটাই বলেন কৈলাশ বিজয় বিজয় বর্গীয়। 

আরও পড়ুন, 'আগুন নিয়ে খেলবেন না', জেলাশাসক-পুলিশ সুপারকে হুঁশিয়ারি রাজ্যপালের

 


'রাজ্য সরকার হাইকোর্টের সেই নির্দেশ মেনেও চলছে না'


তিনি আরও জানিয়েছে, 'ভারতীয় জনতা পার্টির কার্যকর্তাদের হত্যা হয়ছে। গত ১৫ দিনের মধ্যে প্রায় ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। দুই জনের পুলিশ কাস্টডিতেও মৃত্যু হয়েছে। একজনের মৃতদেহ তো এখনও অবধি মেলেনি। এত সংবেদন শূন্য সরকার আমি কখনো দেখিনি, যেখানে হাইকোর্টের নির্দেশও অমান্য করা হয়। মৃতের ময়নাতদন্ত করা এবং ৩ জন চিকিৎসকের দল করতে নির্দেশ দিয়েছিল  হাইকোর্ট। আর রাজ্য সরকার হাইকোর্টের সেই নির্দেশ মেনেও চলছে না। এখানেই শেষ বছর ৪০ ভারতীয় জনতা পার্টীর এক কার্যকর্তার দেহ ১৭ দিন ধরে হাসপাতালে পড়ে আছে। আমার মনে হয় এমন সংবেদন-শূন্য সরকার আমি আমার জীবনে কখনও দেখিনি।  আমরা রাজ্য সরকারের এই রূপকেই আমজনতার কাছে তুলে ধরব। কারণ আমরা ভয় পাই না। আমারা প্রজাতন্ত্রের স্থাপণ করার জন্য যতই শহীদ হতে হোক না কেন, আমরা লড়াই করব। আর এই পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্রের স্থাপণ নিশ্চিতভাবে করব।'

আরও পড়ুন, 'বাংলায় গণতান্ত্রিক পরিবেশ না থাকলে রাষ্ট্রপতি শাসন', বিস্ফোরক দিলীপ

 

 

'বিজেপি-র কার্যকর্তাকে পুলিশি কাষ্টডি প্রাণ হারাতে হয়'

অপরদিকে, রাজ্যপালের প্রসঙ্গও তোলেন তিনি। রাজ্যের হাল খারাপ এই বলে সহমত প্রকাশ করেন।  'বর্তমান সরকার থাকাকালীন নির্বিঘ্ন নির্বাচনী ভোট নিয়েও আশঙ্কা প্রকাশ করেন। কৈলাশ বিজয় বর্গীয়-র বক্তব্য যেখানে তাঁদের কার্যকর্তাকে পুলিশি কাষ্টডি প্রাণ হারাতে হয়। তাই রাজনীতিকরণ তো দেখেছি, তবে এমন অপরাধীকরণ কখনও দেখিনি।'

 

আরও পড়ুন, নবান্ন অভিযানে পুলিশের বেদম মার খাওয়া কর্মীদের সম্মান জানাবে বিজেপি, জানালেন সৌমিত্র খাঁ