কাঠফাটা গরম। রোদে পুড়ে যাচ্ছে ব্রক্ষ্মতালু।  শরৎ অনেক দূর। তবু  অকালবোধনই হয়ে গেল।  মোদীরাজের শুরয়াতে এই ঘটনারই সাক্ষী থাকল হাওড়া স্টেশন।

আজ বৃহস্পতিবার নরেন্দ্র মোদী পুনরায় ভারতবর্ষের প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ নিতে চলেছেন। সন্ধে ৭ টায় রাষ্ট্রপতিভবনে এই অনুষ্ঠানকে নিয়ে সাজো সাজো রব। অংশ নেবেন ৭০০০ -এরও বেশি অভ্যাগতরা। উৎসাহের শেষ নেই আম জনতার মধ্যেও।

এই অনুষ্ঠানতে কেন্দ্র করেই সকালে হাওড়া স্টেশনের ওল্ড কমপ্লেক্সের ২ নং প্লাটফর্ম থেকে শুরু করে ২২ নং প্ল্যাটফর্ম পর্যন্ত ট্রেনে উঠে যাত্রীদের মিষ্টি খাওয়ানো হল। এর আগে সকাল ১০টায় রাম ও মা দুর্গার পূজা হল হাওড়া ট্যাক্সিস্ট্যান্ডে।

গত বুধবার খবর পাওয়া গিয়েছিল মোদীরাজ দুই শুরুর আগেই তার নামেই কুলফি বানাচ্ছেন গুজরাটের এক ব্যবসায়ী। এদিনও আমজনতার এই উচ্ছাসের ছবিটা দেখা গেল আম জনতার মধ্যে।

বাংলা বিজেপির তরফে  সকাল থেকেই চলে মিষ্টি বিতরণ। সূত্রের খবর আজ সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী শপথ নেওয়ার পরেই বড়বাজার এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে বিতরণ করা হবে এই লাড্ডু।

আরও পড়ুন-
বিদ্যাসাগরের মূর্তি গড়ছে রাজ্য, সঙ্গে বসছে রবীন্দ্রনাথের মূর্তিও

প্রসঙ্গত আরর কিছুক্ষণের মধ্যেই অভিষেক হবে মোদীর দ্বিতীয় মন্ত্রীসভার। দশ হাজার নিরাপত্তারক্ষী মোতায়েন করেছে এই অনুষ্ঠানে দিল্লি পুলিশ। রয়েছেন নামী দামি অভ্যাগতরাও। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী নিজের সিদ্ধান্ত শেষ মুহূর্তে খারিজ করেছেন। তিনি দিল্লির এই অনুষ্ঠানে যাননি। কারণ হিসেবে মমতা গেরুয়া শিবিরের হিংসা তত্ত্বকেই দায়ী করছেন। মমতার মতে, রাজ্যের ছোট পারিবারিক হিংসেকেও রাজনৈতিক হিংসে হিসেবে প্রতিপন্ন করছে বিজেপি।