ভুবনেশ্বরে অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠক পর্ব শেষ হতেই দিল্লি নিয়ে মুখ খুললেন তৃণমূল নেত্রী। সোমবার নেতাজি ইন্ডোরের সভায় দিল্লির হিংসাকে পরিকল্পিত গণহত্যা বলে মন্তব্য় করলেন মুখ্য়মন্ত্রী। ফলে দেরিতে হলেও দিল্লি হিংসা নিয়ে ফের রাজ্য রাজনীতিতে শুরু হয়ে গেল বিজেপি-তৃণমূল দ্বৈরথ।

বাংলায় 'গোলি মারো' বলতেই গ্রেফতার করেছি,অমিত শাহকে নিশানা মমতার

পাখির চোখ একুশের ভোট। দিদিকে বলোর পর দ্বিতীয় দফায় তৃণমূলের মেগা কর্মসূচি 'বাংলার গর্ব মমতা'। এই  স্লোগানেই  নয়া ক্যাম্পেনে তাক লাগানোর তোড়জোড় শুরু করেছে তৃণমূলের। সোমবার তারই বাস্তবায়ন দেখা যায় নেতাজি ইন্ডোরে। 

এদিন মঞ্চ থেকে তৃণমূল নেত্রী বলেন,ঘাসফুলের বিকল্প ঘাসফুলই।  এদিন সভার শুরুতেই দিল্লিতে মৃতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে নীরবতা পালন করেন মমতা। পর দিল্লিতে হিংসার জন্য কাঠগড়ায়  দাঁড় করিয়েছেন অমিত শাহকে।  প্রশ্ন তুলেছেন দিল্লির হিংসার বিরুদ্ধেও। মমতা বলেন, পরিকল্পনা করে গণহত্যা হয়েছে দিল্লিতে। পুলিস, সেনা, আধা সেনা থাকা সত্ত্বেও কীভাবে এই হিংসা হল তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো।

বাড়ি ফেরার সব পথ বন্ধ, 'দমবন্ধকর অবস্থা'য় ইরান থেকে ভিডিও বার্তা কলকাতার ছেলের, দেখুন

রাজনৈতিক  ভাষণে প্রথম থেকেই অনুরাগ ঠাকুরের স্লোগানকে হাতিয়ার  করেন মমতা। তিনি বলেন, কে গদ্দার মানুষ ঠিক করবে। আমার রাজ্যে এ রকম স্লোগান দেওয়া মাত্রই গ্রেফতার করিয়েছি। অথচ দিল্লিতে এই সব বলেও সবাই পার পেয়ে গিয়েছে।  প্রতিদিন নালা খুলছে আর একটা করে মৃতদেহ বেরোচ্ছে। এর জবাব দিতে হবে ওদের।

তৃণমূল থেকে রাজ্য়সভায় প্রশান্ত কিশোর, এখনও সিদ্ধান্ত নেননি বললেন পিকে

রবিবার সিএএ-র সমর্থনে কলকাতায় সভা করতে আসেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। যেখানে দেখা যায়, সভাস্থলে যাওয়ার আগে বিজেপি কর্মীদের মুখে ওঠে অনুরাগ ঠাকুরের স্লোগান। প্রকাশ্যে 'দেশ কে গদ্দারো কো-গোলি মারো সালো কো' বলতে শোনা যায় বিজেপি কর্মীদের। সেই অভিযোগেই এই কর্মীদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ। দিল্লি নির্বাচনের প্রচারপর্বে কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর প্রথম এই স্লোগান তুলেছিলেন। পরবর্তীকালে এই স্লোগান নিয়ে তীব্র বিতর্ক তৈরি হয়।