শুক্রবার প্রবল বর্ষণের পূর্বাভাস  কলকাতা সহ রাজ্য়ে। এদিন সকাল থেকেই আকাশ মেঘলা। আবহাওয়া দফতর আগেই জানিয়েছে,ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হতে পারে দার্জিলিং, কালিম্পং, বীরভূম এবং পশ্চিম বর্ধমান জেলায়। উল্লেখ্য নির্ধারিত সময়ের কিছু আগেই বঙ্গে প্রবেশ করতে পারে বর্ষা।

 

 

বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি শুরু হয়েছে কলকাতায়। বৃহস্পতিবার ভরা কোটালের ফলে গঙ্গার জলস্তর  ইতিমধ্যেই কলকাতার জন্য আবহবিদরা সতর্ক করে দিয়েছেন। গতকাল বেলা সাড়ে ১১ টাতেই বন্ধ করে দেওয়া হয় লকগেট। তাই বৃষ্টি হলে জল জমার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে কলকাতায়। ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস রয়েছে মালদহ, উত্তর দিনাজপুর, দার্জিলিং, কালিম্পং সহ উত্তরবঙ্গে।  কলকাতা সহ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে এদিনও ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। 

আরও পড়ুন, 'ঘূর্ণিঝড়ের মোকাবিলায় রাজ্য সরকার ব্যর্থ', '১৫ হাজার কোটি' ক্ষয়ক্ষতি জানতেই নিশানা শুভেন্দুর 

 

 

 আবহাওয়া দফতরের আধিকারিকরা জানাচ্ছেন পশ্চিমবঙ্গের উপর জলীয় বাষ্পপূর্ণ বায়ু সুস্পষ্টভাবে ততক্ষণ থাকবে, যতক্ষণ না যশের শক্তির পুরোপুরি ক্ষয় হয়।  কারণ যেহেতু জামশেদপুর থেকে রাঁচি এই বিস্তীর্ণ অঞ্চল পশ্চিমবঙ্গের খুবই কাছাকাছি, সেজন্য যশের প্রভাব রাজ্যের আবহাওয়ার ওপর জোরালো ভাবেই পড়বে। সেজন্য পশ্চিমবঙ্গের একাধিক জায়গায় বৃহস্পতিবার ভারী বৃষ্টিপাত হয়। বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণও অত্যধিক রয়েছে বলে জানানো হয়েছে। ফলে পশ্চিমবঙ্গের পূর্ব দিকে প্রায় প্রত্যেকটি জেলায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা আছে। বীরভূম থেকে উত্তর ২৪ পরগনা- প্রত্যেকটি জেলায় বায়ুতে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেশি। তাই বৃষ্টির সম্ভাবনা শুক্রবার পর্যন্ত রয়েছে। 

আরও পড়ুন, বাংলায় ফের টর্নেডো, লন্ডভন্ড অশোকনগর, আশ্রয়হীন বহু মানুষ 

ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হতে পারে দার্জিলিং, কালিম্পং, বীরভূম এবং পশ্চিম বর্ধমান জেলায়। বাকি জেলা গুলিতে মাঝারি থেকে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি হবে। অন্যদিকে, হাওয়া অফিস জানিয়েছে কেরলে মৌসুমী বায়ু যথাসময়ে প্রবেশ করলেও বর্ষা এবার রাজ্যে আসবে হয়ত একটু আগে। অর্থাৎ নির্ধারিত সময়ের কিছু আগেই বঙ্গে প্রবেশ করতে পারে বর্ষা। আন্দামান নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে বর্ষা আসে ২২ মে। এবছর ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে একুশে মে অর্থাৎ নির্ধারিত সময়ের একদিন আগেই আন্দামান নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমি বায়ু ঢুকে যেতে পারে , এমনই সম্ভাবনার কথা জানাচ্ছে আবহাওয়া দফতর।

 

 

আরও পড়ুন, Cyclone Yaas LIVE - ঘূর্ণিঝড় যশ পরবর্তী পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে আজই রাজ্যে মোদী, শুক্রবার জেলা সফরে মমতা  


  আবহাওয়া দফতরে খবর অনুযায়ী, শুক্রবার শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩১.৮ ডিগ্রি সেলসিয়ার্স।  স্বাভাবিকের থেকে ৩ ডিগ্রি নীচে। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা  ২৫.৬ ডিগ্রী।  স্বাভাবিকের থেকে ১ ডিগ্রি নীচে। অপরদিকে এদিন শহরের বাতাসে জলীয়বাষ্পের সর্বোচ্চ পরিমাণ ৯৭ শতাংশ এবং সর্বনিম্ন ৮৩ শতাংশ বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস।বৃহস্পতিবার শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩০.১ ডিগ্রি সেলসিয়ার্স।  স্বাভাবিকের থেকে ৫ ডিগ্রি নীচে। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা  ২৬.০ ডিগ্রী।  স্বাভাবিকের থেকে ১ ডিগ্রি নীচে। অপরদিকে এদিন শহরের বাতাসে জলীয়বাষ্পের সর্বোচ্চ পরিমাণ ৯৫ শতাংশ এবং সর্বনিম্ন ৭৬ শতাংশ বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস।বুধবার শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩০.৬ ডিগ্রি সেলসিয়ার্স।  স্বাভাবিকের থেকে ৫ ডিগ্রি নীচে। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা  ২৫.২ ডিগ্রী।  স্বাভাবিকের থেকে ২ ডিগ্রি নীচে। অপরদিকে এদিন শহরের বাতাসে জলীয়বাষ্পের সর্বোচ্চ পরিমাণ ৯৫ শতাংশ এবং সর্বনিম্ন ৭৯ শতাংশ বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস।