দুই বঙ্গেই আগামী কয়েকদিন ঝড়-বৃষ্টির পূ্র্বাভাস রয়েছে ৷ দিল্লির মৌসম ভবন জানিয়েছে,  বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপটির শক্তি বেড়েছে। শুক্রবার সেটি গভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে এবং  শনিবার সেটি ঘূর্ণিঝড়ের চেহারা নেবে। আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড় '‌আমফান'এর জেরে আগামী সোমবার ও মঙ্গলবার এ রাজ্যের গাঙ্গেয় উপকূলের জেলাগুলিতে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টিপাতের সতর্কতা জারি করল আলিপুর আবহাওয়া দফতর। মৎস্যজীবীদেরও সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন, বাসে উঠলেই ২০ টাকা, বেসরকারিতে প্রতি ৪ কিমিতে ৫ টাকা করে বাড়বে ভাড়া


দুই বঙ্গেই আগামী কয়েকদিন ঝড়-বৃষ্টির পূ্র্বাভাস রয়েছে ৷ উত্তরবঙ্গে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ ঝড়-বৃষ্টি হতে পারে ৷  উত্তর বঙ্গের একাধিক জেলায় ঝড়-বৃষ্টির সতর্কতা রয়েছে  ৷ সোমবার থেকে রাজ্যে 'আমফান'-র প্রভাব পড়তে পারে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস ৷ মঙ্গলবার থেকে রাজ্যজুড়েই বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে ৷ উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনায় বাড়বে বৃষ্টি ৷ ঝড়-বৃষ্টির সতর্কতা পূর্ব মেদিনীপুরেও ৷ বৃষ্টির সঙ্গে বইবে ঝোড়ো হাওয়া ৷ বুধবার থেকে রাজ্যে বৃষ্টি  বাড়বে বলে জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর ৷ হাওয়া অফিস জানিয়েছে,  বৃহস্পতিবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৮.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের থেকে ২ ডিগ্রি বেশি।  এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৭.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। 

আরও পড়ুন, করোনার ভয়ে ২ দিন ধরে দাদার দেহ আগলে ভাই, আলিপুর বডিগার্ড লাইনে পচাগলা অবস্থায় উদ্ধার করল পুলিশ


 বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপটির শক্তি বেড়েছে। দিল্লির মৌসম ভবন জানিয়েছে, দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগর ও সংলগ্ন আন্দামান সাগরে নিম্নচাপ ক্রমশ ঘনীভূত হচ্ছে। ক্রমশ শক্তি বাড়াবে এই নিম্নচাপ।শুক্রবার সেটি গভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে এবং ১৬ ই মে শনিবার সন্ধ্যায় এই নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে। দক্ষিণ পশ্চিম ও পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগর এর অবস্থান হবে। এই ঘূর্ণিঝড়ের নাম দেওয়া হয়েছে আমফান। ১৭ ই মে রবিবার পর্যন্ত এটি উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হবে। রবিবার এর পর দিন এটি অভিমুখ পরিবর্তন করে উত্তর-ও উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হবে। 

আরও পড়ুন, বরাত পেল কুমোরটুলি, প্রতিমা যাবে অস্ট্রিয়া আর ফ্রান্সে

আবহাওয়াবিদরা নজর রাখছেন এই ঘূর্ণিঝড়ের উপর। আগামী সপ্তাহের শুরুতেই ওড়িশা ও পশ্চিমবঙ্গের মৎস্যজীবীদের সাগরে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। সেই সঙ্গেই বলা হয়েছে, কেউ সাগরে থাকলে তাঁরা যেন দ্রুত ফিরে আসেন।  উল্লেখ্য়, গত বছর দুটি ঘূর্ণিঝড় প্রভাব ফেলেছে বাংলাকে। একটি  মে মাসের শুরুতে ফণী আছড়ে পড়ে পুরীতে এবং ওড়িশ্য়া পেরিয়ে সেটি বাংলায় আসে। কাঁচাবাড়ি ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়। নভেম্বর মাসে বুলবুল সরাসরি সুন্দরবনে আঘাত হানে। এখনও ক্ষয়ক্ষতির রেশ কাটিয়ে উঠতে পারেননি দ্বীপবাসীরা। আর এবার নতুন করে  আমফানের আতঙ্কে রয়েছেন উপকূলবর্তী মানুষ। 

 

কোভিড হাসপাতালে স্বাভাবিক মৃত্য়ুতেও পরিবার চাইলে সৎকার করবে কলকাতা পৌরসভা, জানালেন ফিরহাদ

করোনা আক্রান্ত প্রাণ হারালেন এবার রাজ্যের এক আইনজীবী, এদিকে আইসোলেশনে তাঁর স্ত্রী

কোভিড পজিটিভ হয়ে মৃত্য়ু প্রখ্যাত ইতিহাসবিদ হরিশঙ্কর বাসুদেবনের