নদিয়ার তেহট্টের পলাশীপাড়ার বার্ণিয়ায় করোনা পজিটিভ রোগীদের পাড়ায় জীবাণুমুক্তকরণে 'জেট-স্প্রে' গাড়ি পাঠাচ্ছে কলকাতা পুরসভা। রবিবার দুপুরে জীবাণুনাশক সোডিয়াম হাইপো ক্লোরাইড রাসায়নিক নিয়েই তেহট্টে পৌছে যাবেন পৌরসভার অফিসার ও বিশেষজ্ঞরা। একথা জানিয়েছেন কলকাতার মেয়র তথা পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। 

আরও পড়ুন, জলাশয়ের জ্য়ান্ত মাছ এবার আসবে বাড়ি, লকডাউনে প্রতিশ্রুতি রাজ্য মৎস্য উন্নয়ন নিগমের


পুরসভা সূত্রে খবর, বার্ণিয়ার পল্লির পাশাপাশি তেহট্টের সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালেও যাবে ওই জেট-স্প্রে গাড়িটি। কারণ, ওই হাসপাতালেও ভর্তি ছিলেন করোনা আক্রান্ত পাঁচ রোগী। গোটা এলাকার বাসিন্দারা প্রবল আতঙ্কে রয়েছে। তাই অপেক্ষা না করেই এদিন প্রায় সঙ্গে সঙ্গে ওই গাড়ি ও রাসায়নিক তেহট্টে পাঠানোর নির্দেশ দেন।গাড়িটি কোথায় কোথায় যাবে তা ঠিক করবেন ওই এলাকার বিডিও-এসডিও। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে রাজ্যের অন্য এলাকাতেও কলকাতা পুরসভা এই জীবাণুনাশক 'জেট-স্প্রে' গাড়ি পাঠাবে বলে পুরমন্ত্রী জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন, ৪জনের বেশি ঢুকতে বাধা শ্মশানে, করোনা রুখতে নয়া বিধি পুরসভার

অপরদিকে কলকাতায় জীবাণুমুক্তকরণ কর্মসূচি যে আরও জোরদার করা হচ্ছে তার বিস্তারিত তথ্য মেয়র জানিয়েছেন। তিনি বলেন, আরও ১০০টি নতুন মিস্টিক ফগিং মেশিন আনা হচ্ছে। আগামী সোম-মঙ্গলবারের মধ্যে পৌছে যাবে। ওই মেশিন কলকাতার পৌছে গেলে, শহরের প্রতিটি ওয়ার্ডের জনপদে, বাজার, বহুতল আবাসন এবং সরকারি দপ্তরেও সোডিয়াম হাইপো ক্লোরাইড মিশ্রণ স্প্রে করা শুরু হবে। সকাল, দুপুর ও বিকেল, তিনটি শিফটে জীবাণুনাশক স্প্রে করবেন পুরকর্মীরা।একইসঙ্গে বড় জেট-স্প্রে গাড়ি দিয়েও সকাল-বিকেল, দুই বেলা রাসায়নিক মিশ্রিত জল ছড়ানো হচ্ছে। উত্তর, দক্ষিণ, পূর্ব ও মধ্য কলকাতা ছাড়াও বেহালা-ঠাকুরপুকুর এলাকায় রাসায়নিক মিশ্রিত জল সমস্ত জনপদেই ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। 

আরও পড়ুন, বাজারে গিয়ে সামাজিক দূরত্ব না মানলে যেতে হবে বেলেঘাটা আইডি, হুঁশিয়ারি মিমির