'তদন্তের স্বার্থে সিবিআই যা বলেছে, সহযোগিতা করেছি।' সারদাকাণ্ডে চূড়ান্ত চার্জশিট পেশের আগে এবার মুকুল রায়ের সঙ্গে মুখোমুখি বসিয়ে তাঁকে জেরা করার দাবি তুললেন মামলার অন্যতম অভিযুক্ত কুণাল ঘোষ। চিঠি দিলেন সিবিআই-এর অধিকর্তা ও যুগ্ম অধিকর্তাকে। কুণালের সাফ কথা, 'রাজনৈতিক মঞ্চ বদলে আইন থেকে ছাড়ের গন্ধ পাচ্ছি। এটা দুর্ভাগ্য়জনক। সিবিআই অফিসাদের উপর আমার আস্থা আছে।'

আরও পড়ুন: আনন্দপুর কাণ্ডে নয়া মোড়, যুবতীর বিরুদ্ধেই চার্জ গঠনের অনুমতি চাইল পুলিশ

লকডাউনের কারণে ব্যাহত হয়েছেন সারদাকাণ্ডের তদন্তও। আলিপুর অতিরিক্ত মুখ্য বিভাগীয় বিচারকে এজলাসে অভিযুক্তরা হাজিরা দিতে পারেননি দীর্ঘদিন। শুক্রবার অবশেষে আদালতে হাজিরা দিলেন অভিযুক্তদের বেশ কয়েকজন। অন্যতম অভিযুক্ত কুণাল ঘোষ যে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাকে চিঠি দিয়েছেন, সেকথা স্বীকার করেছেন সিবিআই-এর আইনজীবী। তাহলে কি কুণাল ও মুকুলকে মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করা হবে? সিবিআই-এর আইনজীবী বলেন, তদন্তকারী সংস্থার শীর্ষ আধিকারিকরাই চিঠি বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। আপাতত তদন্তের গতিপ্রকৃতি অনুযায়ী চিঠি বিষয়বস্তু পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: দুর্গাপুজোয় ক্লাবগুলিকে ৫০ হাজার টাকা অনুদান,জনস্বার্থ মামলা দায়ের কলকাতা হাইকোর্টে

উল্লেখ্য, সারদাকাণ্ডে নাম জড়িয়েছে রাজ্যের পুলিশকর্তা ও কলকাতার প্রাক্তন নগরপাল রাজীব কুমারেরও। শিলং-এ কুণাল ঘোষের সঙ্গে মুখোমুখি বসিয়ে তাঁকে জেরাও করেছেন তদন্তকারীরা। শুক্রবার অবশ্য আদালতে হাজিরা দেননি  তিনি। আইনজীবীর দাবি, গরহাজির কারণ লিখিতভাবে জানানো হয়েছে বিচারককে।