বিরোধীদের আবেদন মানলেন মুখ্য়মন্ত্রী। করোনায় অসংগঠিত ক্ষেত্রে কাজ হারানো দিন মজুরদের ১ হাজার টাকা করে দেবে রাজ্য় সরকার। আগামী ১৫ এপ্রিল থেকে প্রচেষ্টা নামের এই নতুন প্রকল্প চালু করলেন মুখ্য়মন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায়। 

'১০ কোটি রাজ্য়বাসীর জন্য' ৪০টা করোনা কিট, খোদ হতাশা জানালেন মুখ্যমন্ত্রী.

সোমবার নবান্নে করোনা মোকাবিলায় সর্বদলীয় বৈঠক ডেকেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সিপিএম, কংগ্রেস, বিজেপি ছাড়াও এসইউসি, ফরওয়ার্ড ব্লকের মতো বিভিন্ন দলের প্রতিনিধিরা অংশ নেন বৈঠকে। করে৷ বৈঠকে করোনা নিয়ন্ত্রণে রাজ্যের প্রশংসা করেন বিরোধী দলের নেতারা৷ সেখানে বৈঠকের মাঝেই বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার মুখ্যমন্ত্রীকে বলেন, এই পরিস্থিতিতে রাজ্য সরকার অসংগঠিত শ্রমিকদের জন্য এক হাজার টাকা করে দিতে পারে।

দমদমে করোনায় মৃতের সহকর্মী হাসপাতালে, ভাইরাস আতঙ্কে কাঁপছে অফিস

এ প্রসঙ্গে অন্ধ্রপ্রদেশের উদাহরণ দেন বিজেপি নেতা। তখনই মুখ্যমন্ত্রী বলেন, অন্ধ্রের সঙ্গে এখানকার তুলনা  করবেন না। এখানে পুরো চিকিৎসাটাই বিনামূল্য়ে করা হচ্ছে। ওখানে সেটা হয় না। এরপরই অংসগঠিত শ্রমিকদের টাকার জন্য় বিজেপির নেতাদের কেন্দ্রকে বলতে বলেন মুখ্য়মন্ত্রী। মমতা বলেন, বুলবুলের টাকাটা এখন দিতে বলুন কেন্দ্রীয় সরকারকে। আপনারা বলুন, তাহলে ওই টাকাটা খরচ করতে পারি।

আপাতত স্বস্তি, দমদমের মৃতের পরিবারে করোনা নেগেটিভ.

যদিও এদিন দেখা গেল, বিরোধীদের কথা রেখেছেন মুখ্য়মন্ত্রী। অসংগঠিত ক্ষেত্রের জন্য় হাজার টাকা করে দেওয়ার ঘোষণা করলেন তিনি। এদিকে, করোনা রুখতে ইন্ডিয়ান সায়েন্স অফ মেডিক্যাল রিসার্চ বা আইসিএমআর-এর ওপরই ভরসা রাখছে দেশবাসী। তাদের গাইডলাইন মেনেই ঠিক হচ্ছে করোনা রোখার পন্থা। ওয়াকিবহাল মহল বলছে, নিত্য়দিন করোনা সন্দেহে একাধিক মানুষকে কোয়রান্টিনে যেতে হচ্ছে। অথচ চাইলেও করোনা পরীক্ষার জন্য় পর্যাপ্ত মেডিকেল কিট পাচ্ছে না রাজ্য়বাসী। সোমবার বিজেপির প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে এই কথাই বলেন মুখ্য়মন্ত্রী। 

নবান্নে বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার  মুখ্য়মন্ত্রীকে জিজ্ঞাসা করেন, আইসিএমআর-এর সচিব বলরাম ভার্গভ জানিয়েছেন, করোনা কিটের কোনও অভাব  নেই। তাহলে রাজ্য়ের তরফে কেন করোনা কিট নিয়ে সমস্যা তৈরি হচ্ছে। যার উত্তরে মুখ্য়মন্ত্রী বলেন, এখনও পর্যন্ত  করোনা পরীক্ষায় মোট ৯০টি মেডিকেল কিট পেয়েছে পশ্চিমবঙ্গ। যার মধ্য়ে এখন কেবল ৪০ টি কিটই রয়েছে।