শুরু থেকেই রাজ্যের রেশন ব্যবস্থা রাজনীতি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ নিয়ে সরব হয়েছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখর। মুখ্যমন্ত্রীকে পাঠানো চিঠিতে রেশন ব্যবস্থাকে রাজনীতিমুক্ত করার আবেদন রেখেছিলেন রাজ্যপাল। চলতি সপ্তাহেই রেশনের কালোবাজারি নিয়ে সরব হয়েছিলেন রাজ্যপাল। তিনি বলেছিলেন কালোবাজারি রুখতে আধিকারিকদের তাদের দায়িত্ব পালন করা উচিত।  এবার ফের রাজ্যের রেশন ব্যবস্থা নিয়ে সরব হলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখর। রাজ্যের রেশন ব্যবস্থাকে রাজনীতি মুক্ত করার আবেদন জানিয়ে টুইট করলেন রাজ্যপাল।

 

 

 

আরও পড়ুন, টানা ৩৮ দিন ভেন্টিলেশনে থেকে করোনাকে হারিয়ে বাড়ি ফিরলেন টালিগঞ্জের প্রৌঢ়, মিরাকল বলে দাবি চিকিৎসকদের

শনিবার বাংলাতেই টুইট করে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখর বলেন,  'আপনার রাজ্যপাল আপনার সেবক। প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ অন্ন যোজনার মাধ্যমে ৪,৭৮ হাজার মেট্রিক টন বিনামূল্যে কেন্দ্রীয় সরকার পশ্চিমবঙ্গকে দিয়েছেন। কেন্দ্রীয় সরকার বিনামূল্যে রেশন দিচ্ছে। জনপ্রতি মাসিক পাঁচ কেজি চাল এবং পরিবারপ্রতি মাসিক এক কেজি ডাল। রেশন ব্যবস্থাকে রাজনীতির বন্ধন থেকে মুক্ত করতে হবে। আধিকারিকদের অরাজনৈতিকভাবে কাজ করতে হবে। অবৈধ মজুতদারদের আটকাতে এবং কালোবাজারিদের তাড়াতে হবে। গরিব মানুষ যাতে সঠিক মাত্রায় সঠিক গুণমানের রেশন বিনামূল্যে ন্যায্য ভাবে পান তা নিশ্চিত করুন।'

আরও পড়ুন, বিকেলের পর কালবৈশাখী ও ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস, কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গে প্রবল দুর্যোগের আশঙ্কা

অপরদিকে, শুক্রবারই রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বের তরফে রাজ্যপালকে একাধিক অভিযোগ জানানো হয়। একাধিক অভিযোগের মধ্যে রাজ্যের রেশন ব্যবস্থা প্রসঙ্গ সম্পর্কে রাজ্যপালকে অভিযোগ জানিয়েছে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব। যদিও রাজ্যের রেশন ব্যবস্থা নিয়ে গত সপ্তাহ থেকেই সরব হয়েছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখর। উল্লেখ্য়, রাজ্যের খাদ্য দফতর ইতিমধ্যেই রাজ্যজুড়ে বেশ কয়েকটি রেশন ডিলারের লাইসেন্স বাতিল করেছে। বহু রেশন ডিলারকে গ্রেফতার করে শাস্তিমুলক পদক্ষেপ নিয়েছে।

 

 

'যোদ্ধারা সমরে-করোনা দূরে', ফের সচেতনতামূলক পথচিত্র আঁকল বেলেঘাটা ৩৩ পল্লী

বেহালা হাসপাতালের প্রসুতির শরীরে মিলল এবার করোনার জীবাণু, কেপিসি-র ৩ রোগীর রিপোর্টও পজিটিভ

রোগী ফেলে পালাতে পারল না অ্যাম্বুল্যান্স, পিপিই পরা স্বাস্থ্য়কর্মীদেরকে তীব্র প্রতিবাদ নাকতলাবাসীর