করোনায় আক্রান্তের সংখ্য়া রাজ্য়ে ক্রমশ বেড়ে চলেছে।  সংক্রমণ রুখতে সরকারের তরফে যাবতীয় সব রকমের চেষ্টা চালানো হচ্ছে। তাই এই মুহূর্তে, করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে ৩০০ জন করোনা-পজিটিভ রোগীর চিকিৎসা পরিকাঠামো গড়ার জন্য নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

আরও পড়ুন, ছিল না তাঁদের কাছে ট্রেন বন্ধের খবর, লকডাউনে শিয়ালদায় আটকে ভিন রাজ্যের যাত্রী


 এনআরএস সূত্রে জানা গিয়েছে, করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধির ফলে  ৩০০ জন করোনা-পজিটিভ রোগীর চিকিৎসা পরিকাঠামো গড়ার জন্য নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্য়েই তিন জন অ্যাসিস্ট্যান্ট সুপারের নেতৃত্বে দল গড়ে তুলে কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। এ কাজে যুক্ত স্বাস্থ্যকর্মীদের হাসপাতালেই থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। অপরদিকে করোনা সন্দেহে টালিগঞ্জের এম আর বাঙুর হাসপাতালে রবিবার মোট ১৫ জনকে ভর্তি করানো হয়। তাঁদের মধ্যে চতুর্থ আক্রান্তের স্ত্রী, মা, শাশুড়ি ছাড়া চিকিৎসক, চিকিৎসকের সহকারী এবং এক জন ল্যাব টেকনিশিয়ান আছেন। সূত্রের খবর, ওই ছয় জনের লালারসের নমুনা  সোমবার এসএসকেএমে পাঠানো হবে। বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে নতুন করে নয় জনকে ভর্তি করানো হয়েছে। 

আরও পড়ুন, করোনা রুখতে লকডাউন শহর, আইন ভাঙলে হতে ২ বছরের জেলও

স্বাস্থ্য দফতর গতকাল বিকালে যে বুলেটিন প্রকাশ করেছে তা অনুযায়ী, এ দিন নতুন করে ২১ জনকে হাসপাতালে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। সারা রাজ্যে ১৪ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। নাইসেড সূত্রের খবর, রাজ্যের ৯ জনের নমুনা এ দিন পরীক্ষা করা হয়। তার মধ্যে দ্বিতীয় আক্রান্তের বাবা, মা এবং পরিচারকের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। বাকিদের দেহে করোনাভাইরাসের প্রমাণ কিছু পাওয়া যায়নি। অপরদিকে বেলেঘাটা আইডি-তে করোনা-পরীক্ষা কাদের করা হবে, এ নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে। আইডি-র অধ্যক্ষা অণিমা হালদার এবিষয়ে জানিয়েছেন, পাবলিক অ্যাড্রেস সিস্টেমে করোনা-পরীক্ষা কাদের প্রয়োজন তা টানা ঘোষণার পরিকল্পনা রয়েছে।  

আরও পড়ুন, করোনা আক্রান্ত 'বাবু'র দায়িত্বজ্ঞানহীনতা, হাসপাতালে ফল ভুগছে পরিচারিকার পরিবার