অশীতিপর বৃদ্ধের ডাকে ব্যস্ত হয়ে পুলিশ এল ঘরে। এরপর যা ঘটল, তা অবিস্মরণীয়। কাঁপা হাতে ওই বৃদ্ধ, পুলিশদের এগিয়ে দিলেন ১০ হাজার টাকার চেক, করোনা -তহবিলে। এরপর কার্যতই কথা ওই পুলিশকর্মীরা।  সাহায্য চাইতে নয়, সাহায্য করতে পুলিশদের ডেকেছেন  ওই অশীতিপর বৃদ্ধ। যিনি আসলে একজন প্রাক্তন অধ্য়াপক। 

আরও পড়ুন, সোশ্যাল মিডিয়ায় আপত্তিকর পোস্টের জেরে শ্রীঘরে ৯৬, লকডাউন লঙ্ঘনে গ্রেফতার ৬৩৮

পুলিশি সূত্রে জানা গিয়েছে, জানলা দিয়ে হাত বাড়িয়ে যখন পুলিশকে ডাকছিলেন এক প্রবীণ। তখন স্বাভাবিকভাবে ভাবা হয়েছিল যে তাঁর হয়তো কোনও সাহায্য়ের প্রয়োজন। কিন্তু সামনে যেতেই তাঁরা বাকরুদ্ধ হলেন। কাঁপা কাঁপা গলায় বৃদ্ধ তাঁদের জিজ্ঞেস করলেন, 'এসময় যারা খেতে পাচ্ছেন না, তাদের কীভাবে সাহায্য করতে পারি'। বৃদ্ধের মুখে এই প্রশ্ন শুনে কার্যত অবাক হয়ে যান পুলিশকর্মীরা। তারপর পুলিশ ওই প্রাক্তন অধ্যাপককে মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলের কথা জানান।  বৃদ্ধ এক মিনিটের মধ্যে একটি চেক কেটে তুলে দেন সেখানে কর্তব্যরত পুলিশ আধিকারিকের হাতে। ৮২ বছরের এই প্রাক্তন অধ্যাপকের কথা এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল। জানা গেছে, সুভাষচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায় নামের ওই বৃদ্ধ দমদম এয়ারপোর্টের কাছে থাকেন। তাঁর জীবনধারণের প্রয়োজনীয়টুকু আসে পেনশন থেকে। মাস চালিয়ে বাকিটা জমে খুবই সামান্যই। আর সেই সঞ্চয়ের থেকেই এই চেক তুলে দিলেন তিনি, রাজ্য সরকারের হাতে। 



  আরও পড়ুন, লকডাউনে যৌনকর্মী-রূপান্তরকামীদের পাশে দাঁড়ালেন মুখ্যমন্ত্রী, পৌঁছানো হল পর্যাপ্ত খাবার

বিধাননগর কমিশনারেটের এক পুলিশকর্তা বলেন, 'আমরা সত্যিই প্রথমে ভেবেছিলাম, উনি সাহায্য চাইছেন। তাড়াতাড়ি এগিয়ে যাই এত বয়স্ক মানুষকে জানলা দিয়ে হাত নাড়তে দেখে। কিন্তু তার পরেই আমাদের অবাক হওয়ার পালা। কিন্তু  উনি উল্টে আমাদের বলেন, যে উনি আমাদের ডেকে এনেছেন বলে আর অনলাইন লেনদেন করতে পারেন না বলে উনি দুঃখিত। এই সৌজন্য ভাবা যায় না আজকের দিনে।'



করোনায় আক্রান্ত সদ্য়োজাতের মা, বন্ধ করে দেওয়া হল কলকাতা মেডিক্যালের ইডেন বিল্ডিং

করোনার কোপে বন্ধ কলকাতার আস্ত একটি হাসপাতাল, ১০০ ছাড়িয়ে চিকিৎসক-নার্স সহ কোয়ারেন্টাইনে
 
পার্ক সার্কাসের বেসরকারি হাসপাতালে প্রৌঢ়ের মৃত্য়ু, করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসতেই অভিযোগ তুলল পরিবার