মেয়র পদে ইস্তফা দিয়েই দলীয় নেতৃত্বের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন সব্যসাচী দত্ত। এমন কী, মুখ্যমন্ত্রীর দফতরে অভিযোগ করেও বিধাননগর পুর এলাকায় বেআইনি কাজ বন্ধ করা যায়নি বলে সরাসরি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেই কার্যত নিশানা করেছেন তিনি। বিধাননগরের সদ্য প্রাক্তন মেয়রের অভিযোগকে অবশ্য হাস্যকর বলে উড়িয়ে দিলেন তৃণমূলের মহাসচিব এবং শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। 

আরও পড়ুন- বিধাননগরের মেয়র পদ থেকে ইস্তফা সব্যসাচীর! সাংবাদিক বৈঠকেই রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন

সব্যসাচীর পদত্যাগ এবং তার পরে দল ও সরকারের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পার্থ বলেন,'সব্যসাচী যা ভাল বুঝেছেন, করেছেন। দলের প্রতি তাঁর আনুগত্য থাকার কথা ছিল। আনুগত্য দেখিয়েছিলন বলে মেয়র করা হয়েছিল, দল তাঁকে বিধায়কও করেছে। তাঁর নিশ্চয়ই নিজস্ব কোনও শক্তি আছে, নাহলে আর এত কথা বলছেন কেন! কিন্তু মনে রাখতে হবে, এই শক্তিটা তাঁকে দিয়েছিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি এবং মুখ।

আরও পড়ুন- শাসক দলের হয়ে কাজ করছে পুলিশ, বনগাঁর ঘটনায় মন্তব্য ক্ষুব্ধ বিচারপতির

সব্যসাচীর আনা দুর্নীতির অভিযোগকে খারিজ করে দলের মহাসচিব বলেন বলেন, 'এটা তাঁর আজকে মনে হল কেন? মেয়র হিসেবে তিনি রাস্তায় নেমে কত কিছু বন্ধ করেছেন, আর বেআইনি নির্মাণ বন্ধ করতে পারেননি?এটা হাস্যকর যুক্তি।'

মেয়র পদে ইস্তফা দিয়েই বৃহস্পতিবার প্রাথমিক শিক্ষকদের অনশন মঞ্চে যান সব্যসাচী দত্ত। সেখানে গিয়েও দলবিরোধী মন্তব্য করেন তিনি। এমন কী, কটাক্ষ করেন শিক্ষমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কেও। এই প্রসঙ্গে পার্থ বলেন,  'আমরাও নজর রাখছি। আনুগত্যে ঘাটতি পড়লে বা দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করলে তাঁদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করার সুযোগ দলীয় সংবিধানে রয়েছে। সেই অনুযায়ীই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।' পার্থর এই মন্তব্যের পর তৃণমূল এবার সব্যসাচীর সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার পথে হাঁটে কি না, সেটাই এখন দেখার।