নারী সুরক্ষায় শহরের রাস্তায় নামছে নতুন বাহিনী। এই বাহিনীর একটি বড় অংশ জুড়ে রয়েছে মহিলা পুলিশ। রয়েছেন সার্জেন্টরাও। সোমবার লালবাজারে মোট ৬৭টি স্কুটি ও গাড়ি নিয়ে তৈরি এই বাহিনীর উদ্বোধন করবেন পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা। 

আরও পড়ুন, চিড়িয়াখানায় আরও এক হিংস্র প্রাণী, বড়দিনের আগেই তিনটি নতুন আকর্ষণ

লালবাজার সূত্রে খবর, দিন বা রাত কোনও সময়ই মহিলারা বাইরে বেরিয়ে বিপদের মুখে না পড়েন, তার জন্যই তৈরি করা হয়েছে এই বাহিনী। এই বাহিনীতে থাকছে প্রায় ৪০টি স্কুটি। তার মধ্যে দশটি 'উইনার্স'-এর নতুন টিম।  একই সঙ্গে এই বাহিনীতে থাকছে আরও কুড়িটি টহলদার গাড়ি এবং সাতটি 'শক্তি'-র গাড়িও থাকছে। কলকাতার ৯টি ডিভিশনে এমনভাবে ভাগ করে দেওয়া হয়েছে গাড়ি ও স্কুটিগুলিকে, যাতে প্রায় প্রত্যেকটি থানা এলাকায় সেগুলি তৈরি থাকে। সম্প্রতি পার্ক স্ট্রিটের অ্যালেন পার্কে নারী ও বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের সুরক্ষার জন্য নতুনভাবে তৈরি হওয়া কলকাতা পুলিশের  'বন্ধু' অ্যাপে রয়েছে 'প্যানিক বাটন'। এতে হাতে গেলেই সরাসরি ১০০ ডায়ালে কলটি সংযুক্ত হবে। কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই লালবাজার থেকে আসবে ফোন। কোনও মহিলা এই প্যানিক বাটনে হাত দেওয়ার পর তাঁর সমস্যার কথা বললেই লালবাজারের পক্ষ থেকে এই নারী সুরক্ষা বাহিনীকে জানানো হবে। 

আরও পড়ুন, বড় দিনের পরেও থাকছে উপহার, ১৭২ বছর পর কলকাতা দেখবে রিং অব ফায়ার

একদিকে নারীর সুরক্ষায় 'উইনার্স' আবার ওপর দিকে সেই নারীরা যাতে নিজেদের নিরাপত্তা নিজেরাই করতে পারেন সেজন্য় আয়োজন করা হয়েছিল তেজস্বিনী প্রকল্পের।
মহিলারা যাতে প্রাথমিক আত্মরক্ষার খুঁটিনাটি সম্বন্ধে অবহিত থাকতে পারেন, সে জন্য়ই কলকাতা পুলিশের এই উদ্য়োগ। গতবছর মে মাসে প্রথম আয়োজন করা হয়েছিল একদিকে তেজস্বিনী প্রকল্পের। তখন শহরের মোট ২০টি জায়গায় এই প্রশিক্ষণের ব্য়বস্থা করেছিলেন কমিউনিটি পুলিশের কর্তারা।  অভূতপূর্ব সাড়া পেয়েছিল সেই  উদ্য়োগ। বিগত দিনগুলিতে ইতিমধ্য়েই 'উইনার্স' খুব ভাল কাজ করেছে। শহরের বিভিন্ন জায়গা থেকে ইভটিজিং বা যেকোনও অপরাধমূলক কাজের জন্য় গ্রেফতার করা হয়েছে একাধিক ব্য়ক্তিকে।  এবার তাই আরও একধাপ এগিয়ে গেল  নারী সুরক্ষায়, কলকাতা পুলিশের তরফে পদক্ষেপ।