সুদীপ্ত সেনের চিঠি নিয়ে তোলপাড় রাজ্য। প্রেসিডেন্সি জেলে বসেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়কে চিঠি লেখেন সারদা কর্তা। পয়লা ডিসেম্বরে লেখা এই চিঠির উপর সই আছে জেল সুপারেরও এই চিঠিটি যে সুদীপ্ত সেনই লিখেছেন তা নিশ্চিত করেছেন জেল সুপার। সেই চিঠিতেই রাজ্যের একাধিক নেতা-মন্ত্রীর নাম উল্লেখ করে তাঁদের বিরুদ্ধে কোটি কোটি টাকা নেওয়ার অভিযোগ এনেছেন সারদা কর্তা। এদিকে এই চিঠি পুরোটাই সাজানো বলে দাবি করেছে বাম-বিজেপি-কংগ্রেস।

আরও পড়ুন, 'সব বেঁচে দে' বলে তৃণমূলের জার্সি, জবাবে দিলীপ বললেন 'মে মাসে হবে নিলাম' 

মুকুল রায় এতটাই টাকা নিয়েছেন যে সুদীপ্ত সেন মনেই করতে পারছেন না 


সম্প্রতি সারদা চিটফান্ডকান্ডের তদন্তে সিবিআই-এর হাতে এসেছিল একটি অডিও ক্লিপিংস। সেখানে একাধিক কন্ঠস্বর শোনা যায়। এবার চিঠি লিখে বোমা পাঠালেন সুদীপ্ত সেন। প্রধানমন্ত্রী এবং মুখ্যমন্ত্রীকে তিনি লিখেছেন মুকুল রায় থেকে শুরু করে শুভেন্দু অধিকারি, অধীর চৌধুরি, বিমান বসু, সুজন চক্রবর্তীর নাম। এরপরেই তোলপাড় রাজ্য-রাজনীতি। চিঠিতে সুদীপ্ত সেন দাবি করেছেন, 'কংগ্রেসের অধীর চৌধুরি তাঁর কাছ থেকে ৬ কোটি টাকা নিয়েছেন। এবং ৯ কোটি টাকা নিয়েছেন বাম নেতা সুজন চক্রবর্তী। ২ কোটি টাকা নিয়েছেন বিমান বসু।' পাশাপাশি আরও লিখেছেন যে মুকুল রায় এতটাই টাকা নিয়েছেন যে সুদীপ্ত সেন মনেই করতে পারছেন না।

আরও পড়ুন, ডেরেকের ফোনে আন্দোলনরত কৃষকদের সঙ্গে কথা মুখ্যমন্ত্রীর, কেন্দ্রকে হুঁশিয়ারি মমতার 

 

 'পুরোটাই সাজানো','মামলা করব'

এরপরেই মুখ খোলেন সবাই। বিজেপির সর্ব ভারতীয় সভাপতি বলেছেন, সুদীপ্ত সেন রাজ্য পুলিশের কাস্টডিতে আছেন। পুরোটাই সাজানো। ওর বক্তব্য়ের না রয়েছে বিশ্বাসযোগ্যতা না গ্রহনযোগ্যতা।' 'সুদীপ্ত সেনের চিঠির সত্যতা যাচাই করা হোক তথ্য আছে কিনা', এমনিই মন্তব্য বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এদিকে অধীর চৌধুরি বলেছেন, আমার দেখে ভাল লাগছে যে, জোটকে ভয় পেতে শুরু করেছেন মমতা। এজন্যই এই সব নাম দিয়েছেন। পুরোটাই তৈরি করা। আমি তাঁকে চিনিও না। যদি সেরকম হয় মানহানির মামলা করব'। সুদীপ্ত সেনের কথা উড়িয়ে দিয়ে 'হাস্যকর' বলে জানিয়েছেন সুজন চক্রবর্তীও।

আরও পড়ুন, ঘুরে আসুন ঘাটশিলা, রইল কলকাতার থেকে একটু দূরে সেরা ৫ নতুন ভ্রমণের ঠিকানা