জনতা কার্ফুতে শিয়ালদা স্টেশন চত্ত্বর প্রায় ফাঁকা। অন্যান্য  রবিবারের তুলনায় লোকাল ট্রেন চলছে অনেকটাই কম। একইসঙ্গে কোনও দূরপাল্লার ট্রেন ছেড়ে যায়নি জনতা কার্ফুর সকালে। রবিবার সকাল থেকে প্রধানমন্ত্রীর ডাকে সারা দেশ জুড়ে পালিত হচ্ছে জনতা কারফিউ।

আরও পড়ুন, স্টেশনে নামলেই হবে স্ক্রিনিং, ভিন রাজ্য়ের যাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষায় তৎপর নবান্ন


রবিবার সকালবেলা শিয়ালদহ স্টেশন থেকে কোনও এক্সপ্রেস বা মেল ট্রেন ছেড়ে যায়নি। যে দূরপাল্লা ট্রেন গুলো আগে থেকেই রওনা হয়েছিল সেগুলো সকালবেলা শিয়ালদহ স্টেশনে এসে পৌঁছায়। একইসঙ্গে প্রতি রবিবার শিয়ালদহ স্টেশনের দুই শাখা মিলে মোট ৭৮৮টি লোকাল ট্রেন যাতায়াত করে। এই দিন সেই সংখ্যাটি ৫০০-তে নামিয়ে আনা হয়েছে। তবে কোন সূচী মেনে চলছে না কোনও ট্রেন। পাশাপাশি  মাইকে  ঘোষণা করা হচ্ছে  করোনা ভাইরাস নিয়ে সরকারি নির্দেশিকা। স্টেশনের মধ্যে  জমায়েত হতে দিচ্ছে না রেল পুলিশ। তার জন্য রবিবার শিয়ালদহ মেন শাখা প্রধান ফটকের তিনটি দরজার মধ্যে দুটি বন্ধ করে রাখা হয়েছে। অপরদিকে অনেকেই দূরপাল্লার ট্রেন থেকে নেমে গন্তব্যে পৌঁছনোর জন্য কোনও যানবাহন পাচ্ছেন না।

আরও পড়ুন, করোনা ভাইরাস পরীক্ষার ফি ৪৫০০ টাকার বেশি যেন না হয়, কড়া নির্দেশ বেসরকারি ল্যাবকে

 করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে ক্রমেই দেশ তথা রাজ্য় নাজেহাল। সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারের পক্ষ থেকে যাবতীয় সব রকমের চেষ্টা চালানো হচ্ছে। তাই সতর্কতা হিসেবে রবিবার সকাল থেকে প্রধানমন্ত্রীর ডাকে সারা দেশ জুড়ে পালিত হচ্ছে জনতা কারফিউ। এদিনের কারফিউ নিয়ে আগে থেকেই নিজেদের পরিকল্পনা ঘোষণা করেছিল রেল কর্তৃপক্ষ। রবিবার সকাল বেলা জনতা কার্ফুর সেই পরিকল্পনা পুরো মাত্রায় কার্যকর হতে দেখা গেল শিয়ালদহ স্টেশনে।

করোনা মোকাবিলায় রক্ষা করুন নিজেকে, মেনে চলুন 'হু' এর পরামর্শ
 

সাবধান, করোনা আতঙ্কের মধ্যে এই কাজ করলেই হতে পারে জেল

কী করে করোনার হাত থেকে রক্ষা করবেন আপনার বাড়ির বয়স্ক সদস্যদের, রইল তারই টিপস