সারদা মামলার তদন্তে এবার একসঙ্গে পাঁচজনকে ডেকে পাঠাল ইডি। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায়ও। এর পাশাপাশি প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ কুণাল ঘোষ এবং ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের শীর্ষ কর্তা দেবব্রত সরকারকেও ডাকা হয়েছে। এ ছাড়াও দুই ব্যবসায়ীকেও ডাকা হয়েছে বলে খবর। প্রত্যেককেই দশ দিনের মধ্যে হাজিরা দিতে বলা হয়েছে। 

আরও পড়ুন- এক সপ্তাহের ব্য়বধানে দুইবার, সারদা কাণ্ডে ফের শমন শুভাপ্রসন্নকে

শতাব্দী, কুণাল এবং দেবব্রত ছাড়াও ব্যবসায়ী সজ্জন আগরওয়াল, সন্ধির আগরওয়াল এবং বারুইপুর এলাকায় সারদা মূল এজেন্ট অরিন্দম দাস ওরফে বুম্বাকে ডেকে পাঠানো হয়েছে। শতাব্দী রায় বাদে বাকি পাঁচজনের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে চার্জশিটও জমা দিয়েছে ইডি। কুণাল ঘোষ, দেবব্রত সরকার, অরিন্দম দাস এবং সন্ধির আগরওয়ালকে সারদা মামলা গ্রেফতারও করেছিল ইডি। পরে তাঁরা জামিন পান। 

ইডি সূত্রে খবর, শতাব্দী রায় জানিয়েছেন, সংসদের অধিবেশন চলছে বলে এই মুহূর্তে তিনি হাজিরা দিতে পারছেন না। অধিবেশন শেষ হলে ফের তৃণমূল সাংসদকে ডেকে পাঠানো হবে বলে খবর। 

আরও পড়ুন- শুধু প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণাই নয়, টালিগঞ্জের অনেক মহারথীরই নাম জড়িয়েছে চিটফান্ড কাণ্ডে

লোকসভা নির্বাচনের পর পরই সারদা এবং রোজভ্যালি তদন্তে উল্লেখযোগ্য তৎপরতা দেখাচ্ছে ইডি এবং সিবিআই। এ মাসেই দু' বার চিত্রশিল্পী শুভাপ্রসন্নকে ডেকে পাঠায় সিবিআই। সারদা মামলাতেই ডাক পড়ে ওই শিল্পীর। শুভাপ্রসন্নর মালিকানাধীন একটি চ্যানেল পাঁচ কোটি টাকারও বেশি দাম দিয়ে সুদীপ্ত সেন কিনে নিয়েছিলেন বলে সিবিআই সূত্র খবর। 

রোজভ্যালি কাণ্ডে কিছু দিন আগেই তলব করা হয়েছিল অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে। এর পর পরই ডাকা হয়েছে অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকেও।  রোজভ্য়ালির সঙ্গে তাঁদের আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত তথ্য পাওয়ার জন্যই তারকা অভিনেতা- অভিনেত্রীকে তলব করা হয়েছে বলে খবর।