মাত্র ৫ দিনের ব্যবধানে দুইবার সিবিআই জেরার মুখোমুখি হতে চলেছেন শুভাপ্রসন্ন। সিবিআই-এর নিউটাউনের সিজিও কম্প্লেক্সের অফিসে  গত ৫ জুলাই-ই শুভাপ্রসন্নকে তলব করে সিবিআই। সেখানে শুভাপ্রসন্ন জেরার মুখোমুখিও হন। তারপরে সেখান থেকে বেরিয়ে  উপস্থিত সাংবাদিকদের তিনি জানান, 'সমস্ত ঠিক আছে। সব ব্যাপার মিটে গিয়েছে।' হাসিমুখেও দেখা যায় তাকে। কিন্তু সমস্ত যে মেটেনি তা আরও একবার প্রমাণিত হল। 

প্রসঙ্গত সারদাকাণ্ডে নজিরবিহীন তৎপরতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে সিবিআই-এর প্রতিটি পদক্ষেপেই। গত শুক্রবারই সারদাকাণ্ডের প্রধান তদন্তকারী অফিসার নাগেশ্বর রাও-কে বদলি করা হয়েছে অসমের অসামরিক ও  দমকল বিভাগের ডিআইজি হিসেবে। অন্য দিকে একাধিক সূত্র থেকে পাওয়া তথ্যের উপর ভিত্তি করে খুব শিগগিরই দেবযানী মুখোপাধ্যায় এবং সুদীপ্ত সেনের সঙ্গে মুখোমুখি বসতে চাইছে সিবিআই। তার প্রাক্কালে শুভাপ্রসন্নকে বারবার তলব খুবই ইঙ্গিতবাহী। 

\

আরও পড়ুনঃ সারদাকাণ্ডে শুভাপ্রসন্নকে তলব সিবিআই-এর, কোন কারণে তিনবার জিজ্ঞাসাবাদ শিল্পীকে
ফের থমকে গেল সিবিআই, ২২ জুলাই পর্যন্ত গ্রেফতার করা যাবে না রাজীব কুমারকে
 

ঠিক কি জিজ্ঞেস করা হতে পারে শুভাপ্রসন্নকে? সূত্রের খবর, মূলত দুটি বিষয়ে বারবার তাঁর থেকে জানতে চাইছে সিবিআই। দেবকৃপা প্রাইভেট লিমিটেড নামক কোম্পানিটি শুভাপ্রসন্ন ৫ কোটি ৩০ লক্ষ টাকার বিনিময়ে বিক্রি করে দিয়েছিল দিয়েছিল সুদীপ্ত সেনকে। ২০১০ সালে আপলিঙ্কিং অনুমতি পেলেও দেবকৃপার চ্য়ালেন সময় এখনও কখনও সম্প্রচার করেনি। অন্য দিকে শুভাপ্রসন্নর একটি ছবির প্রদর্শনী নিয়েও জিজ্ঞেসাবাদ করতে চাইছে সিবিআই।  সিবিআই জানতে চায় ৫ কোটি টাকার বিনিময় যে  চ্যানেল বিক্রি হল, তা কখনও সম্প্রচারিত হয়নি। সম্প্রসারের অযোগ্য একটি চ্যানেলের  দাম কী ভাবে ধার্য হল, তাই জানতে চাইছে সিব্আই। বলাই বাহুল্য শুভাপ্রসন্নর ছবির প্রদর্শনীর বিক্রি হওয়া ছবির দাম দর নিয়েও প্রশ্ন আছে সিবিআই-এর ঝুলিতে।