রাজ্য়ে করোনায় মৃতের সংখ্য়ার হিসেব পেয়েও ১৮ তেই থমকে গেল 'কেন্দ্রের মৃতের সংখ্যা'। রাজ্য়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা নির্ধারণকারী বিশেষ কমিটির বিরুদ্ধে গেল না  কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য় মন্ত্রক। শুক্রবারই রাজ্য়ের মুখ্য় সচিব জানিয়ে ছিলেন বাংলায় এখনও পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। বাকি ৩৯ জনের মত্যুর পর শরীরে করোনার অস্তিত্ব পাওয়া গিয়েছে। এমনই হিসেব দিয়েছে মুখ্য়মন্ত্রীর বিশেষ কমিটি। 

রাজ্য়ে রেশন মিলবে এবার দিন ও রাতে, দোকান খোলার সময়সীমা বাড়াল সরকার.

মনে করা হয়েছিল, এই হিসেব সামনে আসার পরই রাজ্য়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৫৭ জন ধরবে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য় মন্ত্রক। কিন্তু দেখা গেল সেই পথে হাঁটেনি কেন্দ্রীয় সরকার। মৃতের সংখ্যায় রাজ্য়ের সঙ্গে মিলে গিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য় মন্ত্রকের পরিসংখ্যান। যদিও কেন্দ্রের করোনা বুলেটিন বলছে, রাজ্য়ে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে বাড়ছে। শনিবার সকাল পর্যন্ত এই সংখ্যাটা ৫৭২ ছুঁয়েছে। শুক্রবার  সকালে ছিল ৫১৪। অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে ৫৭। যদিও আশার খবর,ইতিমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১০৩ জন।

সংক্রামিত সন্দেহে আইডি-র ১৩ জন ইন্টার্ন কোয়ারেন্টাইনে, পরিষেবা নিয়ে চিন্তায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ.

শুক্রবার বিকেলে রাজ্যের মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছিলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে ৫১ জনের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর এসেছে। এই মুহূর্তে রাজ্যে করোনা অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা ৩৮৫। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১০৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ১৮ জনের। এ পর্যন্ত সরকারি কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড়া পেয়েছেন মোট ১১ হাজার ৫৭৬ জন। হোম কোয়ারেন্টাইনে এখনও আছেন ২৬ হাজার ৭১৬ জন।

মর্গের ভার কমাতে পুলিশকে চিঠি বাঙ্গুর হাসপাতালের, মৃত ৬ জনের নামের পাশে লেখা 'কোভিড পজিটিভ'

বরাবরই রাজ্য়ে সরকারের বিরুদ্ধে করোনায়  মৃতের সংখ্যা লুকোনোর অভিযোগ করেছেন বিরোধীরা। সম্প্রতি যা নিয়ে বিবৃতি দিয়েছে মুখ্যসচিব। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনও রোগী মারা গেলে তাঁর মৃত্যু করোনার কারণেই হয়েছে, নাকি অন্য কোনও কারণে, তা খতিয়ে দেখতে ৩ এপ্রিল বিশেষ কমিটি গড়েছিল রাজ্য সরকার। সেই কমিটিতে এখনও পর্যন্ত ৫৭টি করোনা সংক্রমণে মৃত্যুর ঘটনা পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

তিনি জানান, ওই কমিটি জানিয়েছে, ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে নিশ্চিত করোনার কারণে। বাকি ৩৯ জনের মৃত্যুর ক্ষেত্রে কোভিড পজিটিভটা ইন্সিডেন্টাল ছিল বলে জানিয়েছেন মুখ্যসচিব। এই ১৮ জনের মৃত্যুর মধ্যে তিনটি জনের মৃত্যু ঘটেছে গত ২৪ ঘণ্টায়।