বহুবার বলেও কাজ হয়নি। অভিযোগ,ন্যায্য় দাবিতে রাস্তায় নামলে জোর করে হটিয়ে দেওয়া হয়েছে তাঁদের। এবার ১৯ সেপ্টেম্বর রানি রাসমণি অ্যাভিনিউতে নিজেদের দাবি-দাওয়া নিয়ে বিক্ষোভ দেখাবে ওয়েস্ট বেঙ্গল স্কুল ও মাদ্রাসা ক্লার্কস অ্য়াসোসিয়েশন।

এবার রাজ্য সরকার দাবি না মানলে সরাসরি সংঘাতে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিল ওয়েস্ট বেঙ্গল স্কুল ও মাদ্রাসা ক্লার্কস অ্য়াসোসিয়েশন। সংগঠনের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে আগামী দিনে বিক্ষোভ কর্মসূচি থাকলেও রাজ্য না মানলে আরও বৃহত্তর আন্দোলনে নামবেন তাঁরা। প্রশ্ন উঠছে, কীসের দাবিতে সংগঠনের এই বিক্ষোভ ? কেনই বা  রাজ্য সরকারকে হুঁশিয়ারি দিচ্ছেন? সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক তন্ময় সরকার জানিয়েছেন, ক্লারিক্যাল কাজের কোনও নির্দিষ্ট নিয়ম নেই। সেকারণে স্কুল বা মাদ্রাসাগুলিতে তাঁদের যেকোনও কাজ করিয়ে নেওয়া হচ্ছে। এসব আর চলবে না। করণিকদের কাজেরও কর্মতালিকা প্রকাশ করতে হবে। বর্তমানে স্কুল ও মাদ্রাসা করণিক পদের ন্যূনতম কাজের যোগ্যতা মাধ্যমিক। বাস্তবে দেখা যাচ্ছে, কম্পিউটারের মাধ্য়মে বিভিন্ন কাজ করতে গিয়ে করণিক পদের ন্যূনতম যোগ্যতা বাড়ানোর প্রয়োজন রয়েছে। স্কুল ও মাদ্রাসায় করণিক পদে তাই ন্যূততম যোগ্য়তা উচ্চমাধ্য়মিক চাইছে এই সংগঠন।

আরও পড়ুন :শামিকে বিষোদ্গার ছেড়ে হাসিনের মুখে মমতা-বন্দনা, তবে কি এবার অন্য আঙিনায়, বাড়ছে জল্পনা

আরও পড়ুন :দেবশ্রী নিয়ে শর্ত মানবেন না, শোভন- বৈশাখীকে সাফ বার্তা দিলেন দিলীপ


এখানেই শেষ নয়। এই সংগঠনের দাবি,ক্যারিয়ার অ্যাডভান্সমেন্ট স্কিমের আওতায় এনে করণিকদের বেতন কাঠামো উন্নত করা হোক। ৮,১৮ ও ২৫ বছরের পর যথাক্রমে উচ্চতর পে স্কেল হোক ক্লার্কদের। সংগঠেনর সম্পাদক জানিয়েছেন,ইতিমধ্যেই নিজেদের দশ দফা দাবি নিয়ে ২০১৮ সালের ৮ অগাস্ট শিক্ষা সচিবের কাছে চিঠি দেওয়া হয়। কিন্তু তাতেও কোনও কাজ হয়নি। পরে শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আগাম দেখা করার আবেদন করা হলেও শিক্ষামন্ত্রী তাঁদের সঙ্গে দেখা করেননি। চারবার চিঠি দেওয়া হলেও শিক্ষামন্ত্রী তাঁদের সঙ্গে দেখা করেননি।