দারুচিনি শুধু মশলা হিসেবে জনপ্রিয় নয়, তার অনেক ঔষধি গুনাগুণও রয়েছে। হাজার হাজার বছর ধরে দারুচিনি ব্যবহৃত হয়ে আসছে। দারুচিনির মধ্যে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট শরীরে থাকা ফ্রি ব়্যাডিক্যালগুলির ক্ষতির বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করে। যা মূলত বাত, ডিমেনশিয়া, ডায়াবেটিসের মতো রোগীর জন্য দায়ি। দারুচিনি অনেক ধরনের হয়। মশলা, ঔষধি ছাড়া সৌন্দর্য চর্চাতেও দারুচিনির বহুল ব্যবহার রয়েছে। উজ্জ্বল ত্বকের জন্য দারুচিনিও ভীষণ কার্যকরী। জেনে কী উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে কীভাবে ব্যবহার করা হয় দারুচিনি।

আরও পড়ুন-লকডাউনে ঘরেই হবে স্বাদপূরণ, রান্নাঘরে এই ৩টি জিনিস দিয়ে সহজেই বানিয়ে নিন আইসক্রীম...

ব্রণ নিরাময়ে
যারা দীর্ঘদিন ধরে ব্রণর সঙ্গে লড়াই করে যাচ্ছেন, তাদের জন্য ভীষণ কার্যকরী দারুচিনি। দারুচিনির অ্যান্টি-ব্যাকটোরিয়াল গুনাগুণ ব্রণতে তাজ করে। দারুচিনি দিয়ে ফেসমাস্ক তৈরি করে বাড়িতে লাগিয়ে নিন। দারুচিনি গুড়ো ১ চামচ নিয়ে তাতে ৩ চামচ মধু মিশিয়ে নিয়ে ভাল করে পেস্ট বানিয়ে সারা মুখে লাগিয়ে নিন। তারপর ১০ মিনিট রেখে হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে নিন। এতে ত্বকের আদ্রর্তা বজায় থাকবে।

ত্বকের কোমলতা বজায় রাখতে
দারুচিনি ত্বকের কোমলতা বজায় রাখতে অনেকটাই সাহায্য করে। দীর্ঘদিনের ব্রণর দাগ দূর করতেও এর জুড়ি মেলা ভার।

আরও পড়ুন-ভাইরাস ও সংক্রমণজনিত রোগ প্রতিরোধে, প্রতিদিন সকালে খালি পেটে মেনে চলুন এই নিয়ম...

ত্বকে সরাসরি ব্যবহার নয়
দারুচিনি কোনওভাবেই ত্বকে সরাসরি ব্যবহার করবেন না। এতে ত্বকে জ্বালাভাব হয়।

ঠোঁটের সৌন্দর্যে
অনেকেই আছেন পাতলা ঠোঁট পছন্দ করেন না। ঠোঁটের ভলিউম আনতেও দারুচিনি অনেকটাই কার্যকরী। প্রথমে ঠোঁটে পেট্রোলিয়াম জেলি লাগিয়ে নিয়ে তার উপরে এক চিমটি দারুচিনি গুড়ো লাগিয়ে নিন। কিছুক্ষণ ভাল করে মিশ্রণটি ঘষে নিন। তারপর এক মিনিটের জন্য সেটাকে ঠোঁটে বসতে দিন। তারপর উপরে হালকা করে আবারও ভেসলিন লাগিয়ে নিন, দেখবেন আগের থেকে ঠোঁটে ভলিউম এসেছে।