সারা দেশে ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে করোনা আতঙ্কে। কোনওভাবে আটকানো যাচ্ছে না মারণ ভাইরাসকে। হু হু করে বাড়ছে করোনার প্রকোপ। করোনা আতঙ্কে গ্রাস করেছে সারা বিশ্বকে। তার উপর দীর্ঘ এত দিনের লকডাউনে করুণ পরিস্থিতি হয়েছে সকলেরই। সকলের কাছে আতঙ্ক এই কোভিড ১৯। সম্প্রতি গবেষণায় এক নথা তথ্য প্রকাশ্যে এসেছে, যা শুনে ঘুম উড়েছে। করোনার প্রভাব পড়েছে এবার ঘুমে। করোনা সংক্রমণের হার কমানো গেলেও তা মারাত্মক প্রভাব ফেলেছে মানুষের জীবনযাত্রায়।

আরও পড়ুন-৩ মাসে ধরে ব্যাঙ্কে ঢুকছে না গ্যাসের ভর্তুকি, জানুন কেন...

ঘুমের কারণেই শরীরে দানা বাঁধছে বিভিন্ন রোগ। লকডাউনে অনেকেরই ঘুমের সময় বেড়েছে আবার কারোর হয়তো কাজের চাপে ঘুমের সময়ের কোনও খেয়াল নেই। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন,  লকডাউনের ঘুমের উপরে বড়সড় প্রভাব ফেলছে মারণ ভাইরাস করোনা। সুস্থ শরীরের জন্য ঘুম কতটা জরুরি তা আমাদের সকলেরই জানা। কিন্তু সুস্বাস্থ্যের জন্য ঘুম কতটা জরুরি এবং সেই বিষয়ে মানুষ কতটা সচেতন তা নিয়ে যথেষ্ঠ সন্দেহ রয়েছে।  বর্তমানে এই ব্যস্ততার যুগে সকলেরই নাজেহাল অবস্থা। করোনা সঙ্কটই বদলে দিয়েছে  ঘুমের সময়।

সূত্র থেকে জানা গেছে, এইমস এর সাইকিয়াট্রি ও স্লিপ মেডিসিন বিভাগ দেশের ২৫ টি রাজ্যের সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালগুলি সহযোগিতায় সাহায্য করে। সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি সার্ভে করে দেখা গেছে লকডাউনের আগে রাতে ১১ টার পর ঘুমিয়ে পড়তেন ৪৮.৪ শতাংশ। এখন ছবিটা বদলে হয়েছে ৬৫.২ শতাংশ।  ঠিক তেমনই লকডাউনের আগে রাত ১১ টার আগে ঘুমিয়ে পড়তেন ৫১.৬ শতাংশ। এখন তা দাড়িয়েছে ৩৪.৮ শতাংশ। সুতরাং সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে লকডাউনে বেশি রাতে ঘুমোতে যাওয়ার প্রবণতা বেড়েছে। এই লকডাউনে ঘুমোলেও ফ্রেশ হচ্ছে না অধিকাংশ। সারাদিন বসে থাকতে থাকতেই ঘুম ছুটছে বলে দাবি বিশেষজ্ঞদের। হার্ট অ্যাটাক থেকে স্ট্রোক নানা ধরনের বিপদের ঝুঁকি বাড়ছে কম ঘুমের কারণে।