আলু সেদ্ধ মাখা থেকে স্যান্ডউইচ বা পাস্তা, খাবারের স্বাদ বৃদ্ধিতে পেঁয়াজের তুলনা চলে না। বর্তমানে পেঁয়াজের মূল্য আঁকাশ ছোয়া। তবুও রান্নায় পেঁয়াজের ব্যবহার একেবারে স্তব্ধ হয়ে যায়নি। তবে শুধু রান্নায় স্বাদ বৃদ্ধিতেই নয় নানান রোগ মুক্তিতেও কাজে দেয় পেঁয়াজ। 

বার বার বমি হলে ম্যাজিকের মত কাজ দেয় পেঁয়াজ। সে ক্ষেত্রে একটি পাত্রে কাঁচা পেঁয়াজের রস ও অন্য একটি পাত্রে পিপারমেন্ট টি রেখে দিন। পাঁচ মিনিট অন্তর অন্তর এক চামচ পেঁয়াজের রস ও পিপারমেন্ট টি খেলে। ১৫ মিনিটের মধ্যে বমির সমস্যা কমে যাবে।

আরও পড়ুন- বিয়ের প্রস্তুতি চলছে, কনের সাজে নজর কাড়তে মেনে চলুন এই ডায়েট

অনেকদিন ধরে জ্বরে ভুগছেন, জ্বর কিছুতেই কমছে না, সে ক্ষেত্রে পায়ের তলায় নারকেল তেল গরম করে মালিশ নিয়ে একটি গোল করে কাটা পেঁয়াজের স্লাইস রেখে মোজা পড়ে নিন। কয়েক মুহূর্তে জ্বর কমে যাবে।

জ্বরের মতই দীর্ঘদিন ধরে কাশির সমস্যা হলে, পেঁয়াজ দু টুকরো করে কেটে  তার উপর ব্রাউন সুগার দিয়ে ১ ঘন্টা রেখে দিন। এরপর দুবেলা দুটি টুকরো খেয়ে নিন। প্রথম দিন খাওয়ার পরেই তফাৎটা বুঝতে পারবেন।

আরও পড়ুন- সম্পর্ক সুস্থ এবং স্বাভাবিক রাখতে মাথায় রাখুন এই বিষয়গুলি

বুকে কফ জমে ইনফেকশন হয়ে গেলে ১ টা পেঁয়াজ বেটে তার সঙ্গে ২ চামচ নারকেল তেল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে রাখুন। এই পেস্ট বুকে লাগিয়ে নরম সুতির কাপড় জড়িয়ে রাখুন, কফ বেরিয়ে যাবে আর ইনফেকশন কমে যাবে।
 
কানের ব্যাথা কমানোর জন্য পেঁয়াজ কুড়িয়ে সুতির কাপড়ে বেঁধে কানের কাছে বেঁধে রাখুন। এতে ধীরে ধীরে কানের ব্যথা কমে যাবে।

সাদা পেঁয়াজ শিশুদের পেটের সমস্যায় দারুন কাজ দেয়। সাদা পেঁয়াজ টুকরো টুকরো করে কেটে জলে ফুটিয়ে ওনিয়ন টি বানিয়ে খেলে সমস্যা ঠিক হয়ে যাবে।

কেটে গিয়ে রক্ত পড়া বন্ধ না হলে পেঁয়াজ স্লাইস করে কেটে নিয়ে কাটার উপর লাগিয়ে বেঁধে রাখুন। কিছুক্ষণের মধ্যেই রক্ত পড়া বন্ধ হয়ে যাবে।