একটা সময় পর্যন্ত এমন ছিল শাস্তি পেলেই  কান ধরে ওঠবোসের চল ছিল। যদিও একটা সময় বললে ভুল হবে এখনও পর্যন্ত এই শাস্তিটা বাচ্চাদের দেওয়া হয়ে থাকে। আর স্কুল জীবনে এই ঘটনার সাক্ষী কমবেশি সবাই হয়েছে। রাগী স্যার ম্যাডামের চোখ রাঙানি তো ছিলই তার পাশাপাশি শাস্তি হিসেবে সবার আগে ছিল কান ধরে ওঠবোস। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতির সঙ্গে এই শাস্তির মানও এখন পরিবর্তন হয়ে গেছে। কিন্তু গবেষণায় দেখা গেছে কান ধরে ওঠবোসের অনেক গুণ রয়েছে। জেনে নিন এর কয়েকটি গুনাগুণ।

আরও পড়ুন-নতুন বছরে পরকীয়া নয়, সুখী দাম্পত্যে ফেরার রইল সঠিক হদিশ...

কান ধরে ওঠবোসের অনেক গুণ রয়েছে।  এমনকী দক্ষিণ ভারতের অনেক  মন্দিরে  পুজোর দেওয়ার একটা অঙ্গই হল কান ধরে ওঠবোস করা। কারণ কান ধরে ওঠবোস করলে মস্তিষ্ক সক্রিয় হয়ে ওঠে। এবং মনসংযোগের ক্ষমতা বাড়ে।  গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত কান ধরে ওঠবোস করলে মস্তিষ্ক ভাল থাকে এবং সর্তক হয়ে যায়।  যার ফলে স্মৃতিশক্তি বাড়ে এবং শ্বাস প্রশ্বাসের উন্নতি হয়।

আরও পড়ুুন-ফাস্ট্য়াগ না থাকলে দিতে হবে দ্বিগুণ টোল ট্যাক্স, কার্যকর আজ থেকেই...

আরও জানা গেছে, কান ধরে নিয়মিত ওঠবোস করলে মস্তিষ্কের অ্যালফা তরঙ্গের প্রভাব বাড়ে। কানের লতিতে টান পড়লেই মস্তিষ্কের অনেক কোষ জাগ্রত হয়ে যায়। ফলে মস্তিষ্কের জন্য তা অনেক ভাল কাজ করে। এমন কয়েকটি দেশ রয়েছে যেখানে কান ধরে ওঠবোস করাকে নিয়মিত ব্যায়াম বলে মনে করা হয়। একে আবার সুপার ব্রেন যোগাও বলা হয়। তাই শাস্তি হিসেবে নয়,শরীরের উপকারের জন্য মাঝে মাঝে কান ধরে কিন্তু ওঠবোস করা যেতেই পারে।