সুস্থ সম্পর্কের অন্য়তম বিষয় হল বিশ্বাস। একটি সম্পর্কে যতই প্রেম থাকুক, বিশ্বাসে ঘাটতি পড়লে তা দীর্ঘমেয়াদী হয় না। সারা জীবন ধরে এক জনকেই ভালো লেগে যাবে এ নিশ্চয়তা কেউ দিতে পারে না। রাস্তায় চলতে ফিরতে নানা মানুষকে ভালো লাগতেই  পারে। কিন্তু সে কথা নিজের সঙ্গীকে বলতে পারেন, এমন সম্পর্কই রাখুন। কিন্তু এমন বিরল ঘটে বললে ভুল বলা হবে না। ফলস্বরূপ প্রতারণা, বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক ইত্যাদির মতো ঘটনা ঘটেই থাকে।  কিন্তু কী ভাবে জানবেন, আপনার সঙ্গী গোপনে অন্য কোনও সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ছেন কি না। কয়েকটি লক্ষণ দেখলেই বোঝা যায় আপনার সঙ্গী পরকীয়া করছেন- 

১) আচরণ হঠাৎ পরিবর্তন- হঠাৎ যদি দেখেন আপনার সঙ্গীর আচার, আচরণ, পোশাক, পছন্দ, অপছন্দ ইত্যাদিতে বদল এসেছে তাহলে বুঝবেন তার জীবনেও নতুন কেউ এসেছে। 

আরও পড়ুনঃ সুস্থ সম্পর্ক রাখতে চান! তা হলে ৭টি জিনিস মাথায় রাখুন

২) চোখে চোখ রেখে কথা বলা হঠাৎই যদি সঙ্গী বন্ধ করে দেয় তা হলে বুঝবেন সমস্যা আছে। চোখ দেখে মানুষের ভিতরটাও পড়ে ফেলা যায়। সঙ্গী যদি চোখে চোখ রেখে কথা বলতে অস্বস্তি বোধ করে বা ভয় পায় তা হলে বুঝবেন, সে হয়তো এমন কিছু কাজ করছে 
যা প্রতি নিয়ত আপনার থেকে লুকোতে হচ্ছে। 

৩) ফোনের ব্যবহারের দিকেও  নজর দিন। যদি দেখেন সঙ্গী কারও সঙ্গে ফোনে টেক্সট করার সময়ে হাসছে, বা আপনার সামনে সে ফোন ধরছে না, অতিরিক্ত গোপনীয়তা দেখাচ্ছে, তা হলেই বুঝবেন নতুন কোনও মানুষ হয়তো এসেছে সঙ্গীর  জীবনে। 

৪) সঙ্গীর সঙ্গে এক ছাদের তলায় থাকছেন। বা প্রায়ই দেখা করছেন। কিন্তু তবুও তাঁর সঙ্গে সেই আত্মিক টান অনুভব করছেন না। সঙ্গীর সঙ্গে কথা বলার বিষয় ফুরিয়ে আসছে। সঙ্গী কিছুতেই আপনার কোনও বিষয় মন দিয়ে শুনছেন না। তা হলেই বুঝবেন সঙ্গী হয়তো অন্য কোনও জায়গায় নিজের মন দিয়ে রেখেছেন। 

আরও পড়ুনঃ আপনি নতুন সম্পর্কে! কিন্তু ফিরতে চাইছে প্রাক্তন, কী করবেন

৫) সঙ্গীকে আড়াল করে অন্য সম্পর্কে গেলে এক ধরনের আত্মদংশন হয়। তাই দেখা যায় সঙ্গীকে হঠাৎ করে অনেকে উপহারে ভরিয়ে দেয় ও নানা বাহানায় তাঁকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া শুরু করে দেয়। এটিও প্রতারণার একটি লক্ষণ। কিন্তু উল্টোটাও হয়ে থাকে। 

৬) সঙ্গী যদি আপনার মেসেজের উত্তর অনেক দেরী করে দেয় বা ফোন করলে সব সময়েই তাঁকে ব্যস্ত পান, তা হলে বুঝবেন আপনার গুরুত্ব কমেছে তার জীবনেও। হয়তো অন্য কেউ এসেছে তার জীবনে। 

সর্বপরি, অনেকের জীবনেই পরকীয়া আসে। তবে ভেঙে না পড়ে সঙ্গীকে বুঝিয়ে বলুন। নিজেদের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখুন।