উত্তমা সরকার, জলপাইগুড়িঃ এশিয়ান গেমসে সোনাজয়ী জলপাইগুড়ির স্বপ্না বর্মনের বিরুদ্ধে এবার উঠল বেআইনি কাঠ মজুতের অভিযোগ। বাড়িতে রাখা কাঠের রশিদ দেখাতে না পারায় স্বপ্না বর্মনের পরিবারকে নোটিস ধরালো বন দফতর। সোমবার বিকেলে সূত্র মারফত খবর পেয়ে  জলপাইগুড়ির কালিয়াগঞ্জে স্বপ্নার বাড়িতে অভিযান চালায় বনদফতর। অভিযানে বেশ কিছু কাঠ উদ্ধার হয় স্বপ্নার বাড়ি থেকে। বনদফতরের আধিকারিকরা স্বপ্নার পরিবারের কাছে মজুত কাঠের রশিদ দেখাতে বলেন। কিন্তু পরিবারের তরফে তৎক্ষণাৎ কোনও রশিদ দেখাতে পারেনি। কাগজ দেখাতে না পারায় বনদফতর তাদের ৩০ দিনের মধ্যে মজুত কাঠের কাগজ দেখানোর নোটিস জারি করে। যদিও এই বিষয়ে কোনও মুখ খুলতে চাননি স্বপ্নার পরিবারের সদস্যরা।

আরও পড়ুনঃছবিতে ফিরে দেখা লকডাউন পরবর্তী প্রথম আন্তর্জাতিক টেস্ট ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলি

বন দফতরের অভিযান চলাকালীন স্বপ্না বর্মনের বাড়িতে উপস্থিত হন পাতকাটা গ্রামপঞ্চায়েতের প্রধান প্রধান হেমব্রম। তিনি সাংবাদিক দের জানান বাড়িতে জ্বালানীর জন্য তিস্তায় ভেসে আসা কিছু কাঠ কিনেছিলো স্বপ্না বর্মনের পরিবার। খবর পেয়ে বনদফতর সেগুলু খতিয়ে দেখতে আসে। ঘটনায় টাস্ক ফোর্সের প্রধান সঞ্জয় দত্ত জানান, সোর্স মারফৎ আমরা খবর পাই স্বপ্না বর্মনের বাড়িতে বে আইনি ভাবে কাঠ মজুত করা হয়েছে। এরপর আমরা অভিযানে আসি। এসে দেখি কিছু কাঠ রয়েছে। আমরা সেই কাঠের কাগজ দেখতে চাই। পরিবার থেকে আমাদের বলা হয় এই গুলি তিস্তার বন্যায় ভেসে আসা কাঠ। এই মুহুর্তে তারা কাঠের কাগজ খুঁজে পাচ্ছেনা। তাই আমরা তাদের বৈধ কাগজ দেখানোর জন্য ৩০ দিনের নোটিস দিয়েছি। 

আরও পড়ুনঃফের দেখা মিলবে লর্ডসের দৃশ্য,কবে শার্ট খুলে ওড়াবেন জানালেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়

আরও পড়ুনঃন্যাটওয়েস্ট সিরিজ জয়ের ১৮তম বর্ষপূর্তি,নিজেকে অমিতাভ বচ্চন মনে হয়েছিল,বললেন কাইফ,স্মৃতিচারণা যুবরাজে

খেলার ময়দানে দেশ তথা রাজ্যের নাম একাধিকবার উজ্জ্বল করেছেন স্বপ্না। ২০১৭ এশিয়ান অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপে সোনা জিতেছেন স্বপ্না, ২০১৭ ফেডারেশন কাপেও পেয়ছেন স্বর্ণপদক। স্বপ্নার কেরিয়ারের সবথেকে উল্লেখযোগ্য সাফল্য হল, ২০১৮ সালের এশিয়ান গেমসে সোনা জয়। এই রীপ এক নামী অ্যাথলিটের বিরুদ্ধে বাড়িতে বেআইনি কাঠ মজুত রাখার অভিযোগ। অভিযোগের সত্যতা প্রামণ হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানানো হয়েছে বন দফতরের তরফে।