টানা হারের ধাক্কা সামলালেও, ধারাবাহিকভাবে জয়ের সরণিতে ফেরার অপেক্ষায় ইষ্টবেঙ্গল।  মঙ্গলবার কোঝিকোড়ে অ্যাওয়ে ম্যাচে গোকুলাম এফসির মুখোমুখি মারিও রিভেরার ইষ্টবেঙ্গল। এই মুহুর্তে ১৪ ম্যাচে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের চতুর্থ স্থানে রয়েছে লাল-হলুদ শিবির। যদিও সেই জায়গাও খুব একটা পাকাপাকি নয়। একই পয়েন্ট নিয়ে গোল পার্থক্যের বিচারে পঞ্চম ও ষষ্ঠস্থানে রয়েছে রিয়াল কাশ্মীর ও চেন্নাই সিটি। এক ম্যাচ কম খেলে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে সপ্তম স্থানে রয়েছে গোকুলাম। ফলে গোকুলাম ম্যাচে জয়ের জন্যই ঝাপাতে চলেছে কোলাডো, এসপাদা, ভিক্টর পেরেজরা। অপরদিকে ইষ্টবেঙ্গলকে হারাতে পারলে লিগ টেবিলে উপরে ওঠার সুযোগ রয়েছে গোকুলামের কাছেও।

আরও পড়ুনঃ মাঠে বসে প্রাক্তন দলের জয় দেখলেন সি আর সেভেন, বার্সাকে ২-০ গোলে হারাল রিয়াল

শতবর্ষ হলেও, মরসুমটা মোটেই ভাল যায়নি ইষ্টবেঙ্গল ক্লাবের। কলকাতা লিগ হাতছাড়া হওয়ার পর আইলিগেও দলের হতশ্রী পারফরমেন্স। আইলিগে লাগাতার হারের জেরে মাঝপথে কোচের পদ থেকে ইস্তফা দিতে হয়েছে  আলেজান্দ্রো মেনেন্দেজকে। মাঝপথে দলের দায়িত্ব নিয়েছেন মারিও রিভেরা। দায়িত্ব নিয়েই আত্মবিশ্বাস ও ছন্দ হারানো দলকে কিছুটা সামলেছেন লাল-হলুদের নয়া কোচ। ইন্ডিয়ান অ্যারোজ ও ট্রাউয়ের বিরুদ্ধে জয়ে ফেরে দল। যদিও শেষ ম্যাচে শক্তিশালী চার্চিলের বিরুদ্ধে আটকে যায় ইষ্টবেঙ্গল। কার্যত বলা চলে কোনওক্রমে হার বাঁচে দলের। ম্যাচের ১০ মিনিটেই উইলিজ প্লাজার গোলে এগিয়ে যায় চার্চিল। ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ে কোলাডোর গোলে কোনও মতে আরও একটি হারের হাত থেকে রক্ষা পায় ইষ্টবেঙ্গল।  দল আগের থেকে অনেকটা সংঘবদ্ধ ফুটবল খেলছে, গোলে ফিরেছে দলের আক্রমণ বিভাগ। কিন্তু রক্ষণ নিয়ে রাতের ঘুম উড়ছে লাল-হলুদ কোচের। শেষ ৩ ম্যাচে ৮ গোল করেছে ইষ্টবেঙ্গল, তারমধ্যে দুটি জয় ও একটি ড্র। কিন্তু প্রতি ম্যাচেই গোল হজম করতে হচ্ছে লাল-হলুদ রক্ষণকে। সামাদ আলি মল্লিক, আশির আখতার, মেহতাব সিং, আভাস থাপাদের মধ্যে যে বোঝাপড়ার অভাব রয়েছে তা প্রতি ম্যাচেই স্পষ্ট হয়েছে। আইলিগের প্রথম পর্বের সাক্ষাতেও গোকুলামের কাছে ৩-১ গোলে হারতে হয়েছিল ইষ্টবেঙ্গলকে। হেনরি কিসেক্কা, মার্তি ক্রেসপি ও মার্কাস জোসেফের অ্যাটাকের কাছে আত্মসমর্পন করেছিল লাল-হলুদ রক্ষণ। যদিও জনি আকোস্টা আসা পর্যন্ত এই রক্ষণের উপরই ভরসা রাখতে হচ্ছে  মারিও রিভেরাকে। তাই ফিরতি ম্যাচে রক্ষণ জমাট রেখে আক্রমণে যাওয়াই লক্ষ্য রিভেরার। যদিও শেষ তিন ম্যাচে  মাঝমাঠ ও আক্রমণ বিভাগ কিছুটা স্বস্তি দিয়েছে ইষ্টবেঙ্গল কোচকে। 

আরও পড়ুনঃ টেস্ট সিরিজ খোয়ালো ভারত, কিউয়িদের দেশে হোয়াইট ওয়াশ হলেন কোহলিরা

আরও পড়ুনঃ সাংবাদিক সম্মেলনেই মেজাজ হারালেন বিরাট, প্রশ্ন শুনে সাংবাদিককে তুলোধনা

অপরদিকে জয়ের জন্য ঝাঁপাতে চলেছে গোকুলামও। লিগ টেবিলে দল ভাল জায়গায় না থাকলেও, মরসুমের শেষটা ভালভাবেই করতে চাইছেন গোকুলাম কোচ। ইষ্টবেঙ্গলের রক্ষণের দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে একের পর এক আক্রমণ করা ও গোল তুলে নেওয়াই লক্ষ্য ভালেরার। ফলে মঙ্গলবার কোঝিকোড়ে টানটান লড়াই হতে চলেছে বলেই মত ফুটবল বিশেষজ্ঞদের। একইসঙ্গে দলের জয় ও প্রথম পর্বের হারের বদলা দেখতে মরিয়া লাল-হলুদ সমর্থকরা।